fbpx

Find Your Life Partner with Bangladeshi Matrimonial Service

Bangladeshi matrimonial service has been fast evolving to find Life Partner and what was once considered a traditional at best community driven –

Or through individual brokered pre-matrimonial communication based service between bride and bridegroom families.

Technology is dramatically and profoundly changing the nature of business by providing the potential for new services, radically revamping service delivery, and expanding customer service reach.

Bibahabd Matrimony shall be considered as self service technology to search prospective bride or bridegroom to be enabling match makers offer services online through their web portal.

To log in and Register, participate, create their own pages of database and make it interactive through chatting.

Hence, self service technology adopted in online matrimony provides consumers a greater convenience, accessibility, and ease of use.

Life Partner Bangladesh
Life Partner Bangladesh

Traditions and customs are greatly affected by the attitudes and beliefs of brides or grooms, ceremonies are not as long as they used to be, certain numbers of rituals losing their relevance, unusual trend of marriages are evident, court marriages are gaining importance.

Practically, global techno culture is dominating on many social events, thereby enforcing young peoples to cross the boarders of social practices of Bangladeshi culture.

Recently, online matrimony portals accelerate the opportunities of providing better matrimony services for sharing matrimonial information more comfortably and selectively.

However, one can use a single or multiple vectors simultaneously to share such information depending upon the needs and desire of the individual concern.

It is being observed that aspiring brides and grooms often interact among themselves peer to peer in view of sharing matrimonial information of their own, but without any causative agent.

In fact, gradual change of intermediaries has been taking place over time to meet up the changing requirements of marriage-information seekers in Bangladeshi society, which can be discussed under following sub-headings.

Matrimonial Services:

  • Free registration
  • Fee-based utilities
  • E-matchmaking
  • Online chatting
  • Email/SMS alerts
  • Personalize services
  • Community specific search
  • Horoscope matching

Bangladeshi Matrimonial web portals make for a perfect substitute for millions of Bangladeshis who are now connected to the web and still belong to traditional beliefs.

Considering the enhanced reach, extreme convenience and more privacy, online matrimonial portals are most definitely a preferred substitute to conventional sources to find brides and grooms.

It is simple for anyone to simply log onto a website of their choice and register by uploading a bio data with information of their choice.

It offers user-friendly interfaces for youth as well as parents to conduct searches based on their preferences and initiative conversation with a click of a mouse.

This ideal blend between Bangladeshi traditional systems and modern technology has made it possible for Bangladeshi bachelors and parents around the world and explore and find themselves the perfect match for life. Developed online-portals:

Conventional Measures of matrimony sites:

  • Functionality
  • Enjoyment
  • Security/Privacy
  • Assurance
  • Design
  • Convenience
  • Customization

Today, hundreds of matrimony sites have become operative in national and regional level to sustain the pressure of marriage information seekers.

These sites provide interactive platform to communicate marriage related information. Potential users can choose any of the platforms, but they must evaluate these sites in terms of many factors.

Apart from many matrimonial websites, no doubt, Bibahabd.com is a clear winner followed by others matrimony site in Bangladesh.

These sites are driving their focus more on newer technologies in order to increase the revenues. Such matrimony sites have revealed a completely new Bangladeshi culture in transforming matrimonial information.

The growth of online matrimonial sites is mainly because of the wide variety of choices, convenience, time saving and efficiency.

Recent study reveals that the top online Bangladeshi matchmaking platforms have accounted for over five million marriages in the last decade.

On an average, lot of websites gains around ten thousand new registrations a day and three million active users looking for spouses. 

Matrimonial websites offer different levels of service, so it’s important to make sure you know how much help you think. For further information, you can visit www.bibhahabd.com to make your big bride or groom search a memorable one.

Marriage in Bangladesh

Most marriages in Bangladesh are traditional arranged marriages, semi-arranged marriages or love marriages.

Arranged marriage occurs when a member of the family, a close friend or a third person party helps bring two supposedly compatible people together in matrimony.

Like many non-industrial societies, in Bangladeshi culture, marriage is seen as a union between two families rather than just two people. Within Bangladesh, arranged marriages are arguably the most common form of marriage and are considered traditional in society.

How can I get married in Bangladesh?

1) Offer from one part and acceptance from the other.
2) According to sharia law, two male or one male and two female witnesses. whatever, The Marriage and divorce registration act 1974 equally treated both male and females.
3) Both the parties must be free in their consent.

Marriage in Bangladesh
BEST MATRIMONY SERVICE IN BANGLADESH

How long do Bangladeshi weddings last?

Even though religious ceremonies are distinctive for a Hindu and Muslim wedding, there are some ceremonies that are common for weddings in Bangladesh. A Bangladeshi wedding lasts for 3 days, starting from engagement until bou bhaat(reception).

Can foreigners get married in Bangladesh?

Answer: Yes. Bangladesh Government has made provision of Registration of marriages which came into force in April-2012. Bangladeshi and Foreigner can register their marriage in accordance with The Special Marriage Act, 1872.

What is the law of marriage in Bangladesh?

In Bangladesh, marriage laws are based on a combination of religious and civil law. Civil laws dictate that the legal age of consent and minimum age for marriage is 18 for women and 21 for men. Bangladesh does not have a specific law banning forced marriage.

What is the punishment for second marriage in Bangladesh?

Whoever, having a husband or wife living, marries in any case in which such marriage is void by reason of its taking place during the life of such husband or wife, shall be punished with imprisonment of either description for a term which may extend to seven years, and shall also be liable to fine

What is marriage like in Bangladesh?

Like many non-industrial societies, in Bangladeshi culture, marriage is seen as a union between two families rather than just two people. Within Bangladesh, arranged marriages are arguably the most common form of marriage and are considered traditional in society.

How many wife can you have in Bangladesh?

In Bangladesh multiple marriages doubled in the last decade. The limit is usually four wives, but money is the key determinant. Islamic law allows for 4 wives, consultation with existing spouses, and equal treatment. In practice spousal support may not be evenly or fairly distributed.

What is the main reason for divorce in Bangladesh?

Results indicated that extramarital affairs, substance abuse, physical abuse, dowry-related problems, abandonment, interference from in-laws, polygamy, personality problems, criminal activity, and unemployment of husbands are the primary factors responsible for divorce among women in Bangladesh.

How long does a divorce take in Bangladesh?

Time to complete the divorce process: The one sided divorce or divorce by notice can be completed within 90 days from the date receiving the notice by City Corporation or chairman. To complete a mutual divorce, in practice, both the husband and wife take their decision of giving divorce.

How much does a divorce cost in Bangladesh?

As per marriages and Divorces (Reg) Rules, 1975: A Nikah or Marriage Registrar shall charge a fee of BDT 200 (Two Hundred) for registration of divorce. The marriage registrar may also claim BDT. 25 as commission fee and BDT.

Is divorce common in Bangladesh?

The report said that, considering the total population of the country, the divorce rate is 42%, married rate is 65.26%, single rate is 28.65%, widow or widower rate is 5.31% and marital separation rate is 0.37%.

Popular matrimony websites in Bangladesh

Bibahabd is a Popular Online Matrimony website in Bangladesh Merging tradition with technology since 2007.

As a registered user and subscriber of Popular Matrimony websites in Bangladesh Bibahabd for the past couple of years with the leading online-web portals for matrimony, the author of this paper has spend hours in understanding the dynamics of these portals and in that context consumer perception of the online matrimony.

Bibahabd sections of profiles of an individual:

  • Contact profile
  • Work/career profile
  • Location profile
  • Physical profile
  • Religious profile
  • Community profile
  • Personality profile
  • Family profile
  • Photographs / documents support

While the parents would typically be depending on marriage brokers and classified ads, the web offers a larger variety of platforms to search for along with easier options to categorize search requirements to find a perfect match for daughter or son.

Why online matrimonial Bibahabd website are getting so popular:

  • Free Registration
  • Many choices
  • Convenience
  • Short List and Forward Facility
  • Affordability
  • Neutrality
  • Consumer Experience

Bibahabd Free Registration:
Registration is free of cost-and the prospects need to have an access to Bibahabd online matrimonial website through Internet connection.

Popular Matrimony websites in Bangladesh
Popular Matrimony websites in Bangladesh

Many choices:
Relatives of the prospects can’t bring a choice of thousands of prospective grooms or brides. Newspaper can’t do it either with limited classifieds. Nor can your offline matrimonial services. They, at best, can show pictures of a few hundred.

But when it comes to internet, the choices are endless as more and more get added every day. All you need is time, and the matrimonial websites spread before you profile upon profile of suitable personalities. Just set your search criteria, sit down comfortably and you are set to browse through thousands of profiles.

Convenience:
One thing that internet ensures, in every field that it is used, is convenience of use. And finding brides or grooms through it is no different.

All one need is a computer and an internet connection, and one is set to browse through thousands of matrimonial profiles, right from your home and available all day. Registered users shall download mobile application which brings more flexibility and convenient time to search.

Short List and Forward Facility:
One is able to shortlist or forwards the profiles to their relatives to have a look at the profile delivered to their e-mail ID or simply send the interested profile ID to your relatives and friends to have a say or invite opinion.

Affordability:
The convenience doesn’t come expensive either. One can actually browse through the profile totally free of costs. Creation of profiles is free as well.

But of course, in most of the websites, you need to pay to acquire access to vital information like contact details. However, 100% free matrimonial websites are there too and they work quite as well as the paid websites.

Neutrality:
One place where online matrimonial websites win over suggestions by friends and neighbors is by ensuring complete neutrality.

They have no inclination to hide anything, or exaggerate anything. Of course, people may lie about themselves in their profiles. And that’s where you need to be careful.

Consumer Experience:
The bride shall find her groom through one such online matrimonial website, or rather, the parents found him for her or vice versa.

Since all Online-portals offer free registration and sometimes the perception of users are found to be fraudulent or playful attitude for fun may bring bad reputation of this business activity. But overall matchmaking by matrimonial websites offers a good consumer experience for marriage.

As a registered user and subscriber of online matrimony for the past couple of years with the leading online web portals for matrimony, the author of this paper has spend hours in understanding the dynamics of these portals and in that context consumer perception of the online matrimony as self service technology is viewed and analyzed.

The first impression is that these web portals of online matrimony has come to stay and do active business with subscribers or registered users.

Visit bibahabd to make your matrimonial search a successful one.

How to find trusted Bangladeshi matrimonial websites online

There are few trusted Bangladeshi matrimonial websites with good amount of brand name.

In the modern age, matrimonial websites are redefining the traditional way of meeting people for marriage. Matrimonial services have now becomes in to a world renowned service.

You just need to register your profile on the website. If there is any matter of urgency and you can avail more benefits by registering in the premium membership by paying few sign up fees.

The system posses will be same as others sites like you have to register into their portal like email id, cell number and your family preferences, about your qualifications, caste, education , appearance, occupation and residence address etc. There are few features of using trusted matrimonial websites.

Bangladeshi arranged marriage
Bangladeshi arranged marriage: couple on their wedding day

Based on Data Security:

There are many matrimonial websites which protects its user database by employing various encryption methods. Some websites have security sign in their websites, which ensures much better data security for users. Many companies have 24*7 customer service team and there is a privacy protection options. There is also need of security for user data and pictures uploaded by the peoples. Matrimonial websites are deploying advanced technologically for screening system for prevention of abuses.

Based on functions:

There are also verified contact details of members. Chatting option is also very much needed for premium customers. Quick response services & discounts on events are also very useful. You may use site to find matches from Barisal, Chittagong, Dhaka, Khulna, Mymensingh, Rajshahi, Rangpur, Sylhet Division etc. You may choose from the wide list of Hindu, Muslim, Christian, inter religion and no religious group of people.

Best on User friendliness:

In today busy life, people have hardly few hours left to execute personal work. User friendly and good search options are very much essential for a website to become successful one.

Online matrimony provides the comfort and choice of millions of prospects and much more information about a prospect marriage proposal. In future, market continues to evolve, bring in more customers and serve to new generations, online matrimony will continue to thrive in Bangladesh for a very long time to come.

With matchmaking, matrimonial services offer personal management advice on how to deal and make it work. visit bibahabd to search and find your soul mate from thousand members in the data base.

Popular Matchmaking Portals for Digital Bangladesh

Bangladeshi Matrimonial websites make for a perfect substitute for millions of Bangladeshis who are now connected to the web and still belong to traditional beliefs. Considering the enhanced reach, extreme convenience and more privacy, online matrimonial websites are most definitely a preferred substitute to conventional sources to find brides and grooms.

It is simple for anyone to simply log onto a website of their choice and register by uploading a bio-data with information of their choice. It offers user-friendly interfaces for youth as well as parents to conduct searches based on their preferences and initiative conversation with a click of a mouse.

This ideal blend between Bangladeshi traditional systems and modern technology has made it possible for Bangladeshi bachelors and spinsters around the world and explore and find themselves the perfect match for life.

Various sections of profiles of an individual:

· Contact profile
· Work/career profile
· Location profile
· Physical profile
· Religious profile
· Community profile
· Personality profile
· Family profile
· Photographs / documents support


There are many advantages of using Bangladeshi matrimonial sites, such as some Bangladeshi matrimonial sites permit chatting with other interested individual by live chat options. Everyone can perform a matrimonial registration to help your acquaintances finding a perfect life partner. This is the most helpful way to understand each other liking and disliking. That is actually factual that marriage will occur once in a life. Always give unquestionable and dependable queries, unless data will mislead your all future. So present yourself as you are. Today in Bangladesh people search their life colleague as par their alternative.

This is a nice way to search for marriage partners but sometimes there are fake profiles to mislead people. It’s genuinely tough to find the genuine persons with genuine profile in these Bangladeshi matrimonial sites. But still your good efforts to ascertain each and every profile methodically and make online matrimony an astonishing experience for you.

Advantages of online matrimonial:

· Economic — Save Time and Money
· Easily Accessible
· Filtered Results
· Easy to Communicate
· Informative
· Unlimited Choice
· Advanced Search
· Availability of Picture and Video
· Authenticity
· Privacy
· Past History

Bibahabd.com is the most trusted Bangladeshi matrimonial websites with many verified matrimony websites. Here you can search any profile with respective religion, caste or community. All profiles are verified by professionals in various cities of Bangladesh. Registration option is both free and paid and you can find your suitable bride or groom. Their 24/7 customer service is always at customer service helping you to get best match.

Marriage itself is a sacred bond that occurs not only between a bride and a groom but also between their respective families. The bond is not dependent on the type of marriage or even how extravagant the matrimony may be. Neither a love marriage nor an arranged marriage can guarantee success and both have their own advantages and disadvantages.

Online matrimonial is still a part of arranged marriage as even with online services, parents continue to perform the role of initiating, searching and filtering potential partners. The use of online matrimonial services in fact seems to make it easier to find someone within the sub-caste, religion or community of your choice. . It is evident that online matrimonial services have introduced new elements into the process of arranging marriage that are made possible by technology. Online matrimonial, electronics dating and matrimonial web sites are changing the rules of how relationships are formed and maintained in communities all over the world. For more information, you can visit our website www.bibahabd.com.

বিয়ে করুন যথা সময়ে, এর স্বাস্থ্যগত সুফল অনেক!

বিয়ের কথাটা শুনলেই কেমন যেন লাগে। চিন্তার বিষয়, বয়স হয়েছে তো! সে যাই হোক। বিয়ে করুন উপযুক্ত সময়ে। কারণ বিয়ে করার স্বাস্থ্যগত সুফল অনেক! কি ধরণের সুফল থাকতে পারে বিয়ে করার পর?

কেউ যদি মনে করে থাকেন বিয়ে করার কারণে আপনার মৃত্যুর দিন তাড়াতাড়ি ঘনিয়ে আসবে তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন। কারণ ২০১৩ এর এক রিসার্চে দেখা গেছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জন্ম গ্রহণকারীদের মধ্যে যারা অবিবাহিত তারা বিবাহিত অথবা দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্কের মধ্যে যারা আছে তাদের তুলনায় তাড়াতাড়ি মারা যায়। এর কারণ হিসেবে দেখা গেছে জীবনসঙ্গী মানুষকে আবেগ অনুভূতি বাড়িয়ে দেয়, সামাজিকভাবে একত্রে রাখে, মানসিকভাবে সমর্থন দেয়, যার সব কিছুই সুস্থ স্বাভাবিক স্বাস্থ্যের জন্য প্রয়োজন।

মানসিক চাপ কম থাকে :

যদিও মাঝে মাঝে ঝগড়া লাগে তারপরও তার উপস্থিতি আপনার মনে এক ভালো লাগার অনুভূতি ছড়িয়ে দিবে। মানুষ যখন কোন মানসিক চাপের মধ্যে থাকে তখন শরীরে স্ট্রেস হরমোনের পরিমাণ বেড়ে যায়। এই স্ট্রেস হরমোন বিবাহিতের চেয়ে অবিবাহিতদের শরীরে দ্রুত বৃদ্ধি পায়। অতিরিক্ত পরিমাণে মানসিক চাপ শরীরে সমস্যার জন্ম দেয়, বিশেষ করে হজমের সমস্যার সৃষ্টি করে। রিসার্চে জানা গেছে স্ট্রেস হরমোন বিবাহিতদের শরীরে সেরকম ভাবে ক্ষতি করতে পারে না কিন্তু অবিবাহিতদের শরীরে নানা সমস্যার বাসা তৈরি করে।

হার্ট এ্যাটাকের সম্ভাবনা হ্রাস পায়:

ভালোবাসা হৃদযন্ত্রকে সক্রিয় রাখতে সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা গেছে যারা বিবাহিত অথবা কোন সম্পর্কের মাঝে আছে তাদের হার্ট-অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা নিঃসঙ্গ মানুষের চেয়ে কম। গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে যে সঙ্গীর নিবিড় সঙ্গ এবং নতুন পরিবারের নতুন সব আত্মীয় স্বজন ও বন্ধু- বান্ধবের সাথে ভালো বন্ধনের কারণে হার্ট-অ্যাটাকের ঝুঁকি অনেকাংশে হ্রাস পায়। কারণ পরিবারের সাথে থাকলে মানুষ উৎফুল্ল থাকে। মনে কোন মানসিক চাপ থাকলে তা শেয়ার করতে পারে। এতে মনের উপর চাপ কম পড়ে।

বিয়ে শরীরের হাড় মজবুত করে। অবাক হচ্ছেন? আসলেও তাই। বিয়ে শরীরের হাড় শক্ত করে এবং বিভিন্ন হাড়ের রোগের ঝুঁকি কমায়। বিয়ে হাড়ের খনিজ ঘনত্ব ঠিক রেখে হাড়ের এক ধরণের রোগ “অস্টিওপরোসিস” হওয়ার ঝুঁকি কমায়। একজন ভালো জীবনসঙ্গী পত্নীর মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে হাড়কে ক্ষয়ের হাত থেকে রক্ষা করে। তাই সুখী দাম্পত্য জীবন মহিলাদের হাড়ের খনিজ ঘনত্ব ঠিক রাখার জন্য জরুরী।

অস্ত্রোপচারের পর দ্রুত সুস্থ হওয়া:

কেউ যখন আপনার পাশে সারাক্ষণ থেকে আপনার পরিচর্যা করবে তখন আপনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন। কিন্তু আপনি যখন একা থাকবেন সে ক্ষেত্রে আপনার সুস্থ হতে অনেক সময় লেগে যাবে। কারণ তখন আপনার সব কাজগুলো আপনার নিজেরই করতে হবে। এছাড়াও আপনি যখন কার সান্নিধ্যে থাকবেন তখন বেঁচে থাকার একটা কারণ খুঁজে পাবেন। এক্ষেত্রে জীবন সঙ্গী আপনার বেঁচে থাকার অবলম্বন হয়ে দাঁড়ায়।

অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর ঝুঁকি কমে:

জীবনে কতবার আপনি আপনার জীবনসঙ্গীকে আকস্মিক দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা করেছে? গবেষণায় দেখা গেছে তালাক প্রাপ্ত মহিলা এবং পুরুষেরা বিবাহিতদের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ পরিমাণ বেশি অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়। গবেষকদের মতে বিয়ে দুটি মানুষকে পাশাপাশি রাখে এবং এসব অনাকাঙ্ক্ষিত পরিণামের হাত থেকে রক্ষা করে।

বিষণ্ণতা কমায়:

একাকীত্বের কারণে অথবা অন্য সমস্যার কারণেও মানুষ বিষণ্ণতায় ভুগতে পারে। আর মানুষ যখন হতাশায় ভুগে তখন কি পরিমাণ মানসিক বিপর্যয় ঘটছে তার নিজের, তা সে বুঝতে পারে না। কারণ বিষণ্ণতার প্রথম উপসর্গ হচ্ছে আত্ম-উপলব্ধির হ্রাস পাওয়া। তাই বিষণ্ণতাকে সনাক্ত করতে এবং দূর করতে প্রয়োজন একজন সঙ্গীর। যে সব সময় আপনার সাথে থাকবে, যার সাথে আপনি সবকিছু শেয়ার করতে পারবেন।

ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়:

২০১৩ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, যে সকল মানুষ মরণ ব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিল তাদের মধ্যে শতকরা ২০ ভাগ এর বেশি মানুষ আরোগ্য লাভ করতে সক্ষম হত যদি তারা বিবাহিত হত। এই সাফল্যের হার কেমোথেরাপির থেকেও বেশি। একটি স্বাভাবিক স্থিতিশীল সম্পর্কই প্রথম ধাপের ক্যান্সার সনাক্ত করতে পারে। আর এই বন্ধনই ক্যান্সারের সাথে লড়ে সুস্থ হওয়ার অনুপ্রেরণা যোগায়। একজন উপর্যুক্ত সঙ্গিনী তার সঙ্গীকে খারাপ এবং জীবনের জন্য ঝুঁকিকর কাজ করা থেকে বিরত রাখতে পারে। যেমনঃ মদ্যপান, মাদক সেবন ইত্যাদি।

স্মৃতিভ্রংশ প্রবণতা কমায়:

যদি জীবনে এমন সঙ্গী থাকে যার কাছে গেলে মনে শান্তি আসে তাহলে বার্ধক্য কখনো তাকে স্পর্শ করতে পারে না। গবেষণায় দেখা গেছে যারা তালাকপ্রাপ্ত হয়ে পুনরায় বিয়ে করে নি তাদের স্মৃতি শক্তি নষ্ট হওয়ার প্রবণতা প্রায় তিন গুন বেশি হয় এবং যারা মাঝ বয়সে বিধবা হওয়ার পর আর বিয়ে করেনি তাদের স্মৃতিভ্রংশ প্রবণতা ছয়গুণ বেড়ে যায়। গবেষকরা বলেন বিবাহিত এবং সারাজীবন মানসিকভাবে এবং সামাজিকভাবে পাশাপাশি থাকলে মন প্রফুল্ল থাকে এবং স্মৃতি শক্তি কম হ্রাস পায়।

বিভিন্ন অসুখ থেকে মুক্তি:

সুখী দম্পতিদের কখনো টাইপক-২ ডায়াবেটিস, হার্টের সমস্যা, ফাইব্রোমাইলজিয়া মত অসুখ হতে দেখা যায় না। যেকোনো জিনিস নিয়ে অতিরিক্ত মানসিক চাপ শরীরে উপর খারাপ ভাবে প্রভাব ফেলে। তাই সুস্থ থাকতে হলে সুখী দাম্পত্য জীবন অতিবাহিত করা অতীব জরুরী।

জীবনসঙ্গী খুঁজতে বিবাহবিডি

উচ্চ শিক্ষা শেষে প্রতিষ্ঠিত হবার পরেও যদি আপনার  অথবা  পরিবারের প্রিয় সদস্যটির জন্য উপযুক্ত সঙ্গীর সন্ধান না পাওয়ায় কারনে বিয়ের ব্যাপারে সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগে থাকেন তবে আপনার জন্যই অনলাইন বেইজ ম্যাট্রিমনিয়াল সার্ভিস বিবাহ বিডি ডট কম। ঘরে বসেই ফ্রী রেজিষ্ট্রেশন করে  চাহিদা অনুযায়ী পাত্র/পাত্রীদের প্রোফাইল (ছবি সহ বায়োডাটা) দেখে পাত্র/পাত্রী কিংবা অভিভাবকের সাথে সরাসরি নিজেরাই যোগাযোগ করতে সক্ষম হবেন এবং তা অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যে ।

সংখ্যাতত্ত্বে বিচ্ছেদ

ডিভোর্স শব্দটির আভিধানিক অর্থ বিবাহচ্ছেদ অথবা বিবাহবিচ্ছেদ। বিবাহিত নর-নারীর জীবিত অবস্থায় আইনগত বিবাহ-সম্পর্কের পরিসমাপ্তিই ডিভোর্স। শব্দটি শুনলেই চোখের সামনে ভেসে ওঠে গ্রামবাংলার নারীদের মুখ ও তাঁদের পারিবারিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও মানসিক কষ্ট। আমাদের সমাজে নারীর জন্য অভিশপ্ত জীবন বয়ে আনে ডিভোর্স। চিরায়ত নারীর কাছে স্বামীর ঘরই যেন সকল নিরাপত্তার এবং শান্তির আশ্রয়। পক্ষান্তরে পুরুষেরা ডিভোর্সের মাধ্যমে পুনর্বিবাহের সুপ্ত বাসনা কায়েমের সুযোগ খুঁজে পায়। এটা যেন সামাজিক রীতি। শহর অঞ্চলে ডিভোর্সের পরিব্যাপ্তির রূপ ভিন্ন। ডিভোর্স যেন স্বাধীনতা বা অধিকারের ঢাল। মেয়েরাই ছেলেদের তুলনায় বেশি ডিভোর্সের আবেদন বেশি করে। পরকিয়া (বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক )বা স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে তিক্ততা ডিভোর্সের অন্যতম কারণ,  যা নারীর অধিকার রক্ষার হাতিয়ার। পাশ্চাত্যে বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্রে ডিভোর্সের হার পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি। ৫০ শতাংশ বিবাহ ডিভোর্স পর্যন্ত গড়ায়। ৬৭ শতাংশ দ্বিতীয় বিবাহ ভেঙে যায়। কিন্তু সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রে বিবাহচ্ছেদের হার কমে যাচ্ছে। কারণ হিসেবে দেখা হচ্ছে বিবাহচ্ছেদের আর্থিক অক্ষমতা।

ডিভোর্সের একটি সংক্ষিপ্ত পরিসংখ্যান

আমাদের দেশে ডিভোর্সের হার দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সেল অনুসারে, মার্চ ১৯৯৫ থেকে মার্চ ২০১৩ পর্যন্ত সারাদেশে ডিভোর্সের আবেদন পড়েছে ১৭৩০, যার মধ্যে ঢাকায় ১৩১৭, চট্টগ্রামে ১৩৭, বরিশালে ১০১, খুলনায় ৭২, সিলেটে ৪৮ এবং রাজশাহীতে ১ টা।

২০১৮ সালের জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা প্রথম আলোতে উঠে আসে বিগত বছরগুলোর বিচ্ছেদের হারঃ

ঢাকা ঊত্তর সিটিতে ডিভোর্সের আবেদন পড়ে – ২০১২ সালে ২,৮৮৮ টি,  ২০১৩ সালে ৩,২৩৮ টি, ২০১৪ সালে ৪,৪৪৫ টি, ২০১৫ সালে ৪,০৭৭ টি, ২০১৭ সালে ৫,০৪৬ টি

ঢাকা দক্ষিন সিটিতে ডিভোর্সের আবেদন পড়ে – ২০১২ সালে ৪৫১৮ টি, ২০১৩ সালে ৪,৪৭০ টি, ২০১৪ সালে ৪,৬০০ টি, ২০১৫ সালে ৪,৮৯৭ টি, ২০১৭ সালে ৫,২৪৫ টি

ডিভোর্স কেন হয়

ডিভোর্সের কারণ বহুবিধ। এটা গ্রাম ও শহরে বা শিক্ষিত ও অশিক্ষিত প্রভৃতি বিভিন্ন ডিসকোর্সে প্রভাবিত। গ্রাম অঞ্চলে ডিভোর্সের প্রধান কারণ যৌতুক। এছাড়া স্বামী কৃর্তৃক স্ত্রীকে নির্যাতন, সন্তান না হওয়া, ছেলে সন্তান না হওয়া, যৌনজীবনে অক্ষমতা, বহুবিবাহ, স্ত্রী বা স্বামীর মানসিক রোগ অন্যতম কারণ। অন্যদিকে শহর অঞ্চলে পরকিয়া, স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে নির্যাতন, সন্তান না হওয়া, স্বামী স্ত্রীর দ্বন্ধ, ব্যক্তিত্বের সমস্যা, যৌনজীবনে অক্ষমতা, মাদকাসক্তি. দ্বন্ধ নিরসনে দক্ষতার অভাব ডিভোর্সের প্রধান কারণ।

যুক্তরাজ্যের বিবাহসম্পর্কিত এক রিপোর্টে গ্রান্ট থরন্টম ডিভোর্সের সম্ভাব্য কারণ হিসেবে নিম্নরূপ পরিসংখ্যান তুলে ধরেছেন:

  • বিয়েবহির্ভূত শারীরিক সম্পর্ক ও স্বামী-স্ত্রীর বিশ্বাসভঙ্গ ২৭ শতাংশ
  • পারিবারিক নির্যাতন ১৭ শতাংশ
  • মধ্যবয়সের ক্রাইসিস ১৩ শতাংশ
  • মাদকাসক্তি (অ্যালকোহল আসক্তি ও গ্যাম্বলিং ) ৬ শতাংশ
  • কর্মক্ষেত্রে অ্যালকোহল আসক্তি ৬ শতাংশ পরকিয়ার কারণে পুরুষ ৭৫ শতাংশ এবং নারী ২৫ শতাংশ ক্ষেত্রে দায়ী।

বাংলাদেশ মুসলিম আইন রেজিস্ট্রারের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইকবাল হুসাইনের মতে, ডিভোর্সের অন্যতম কারণ পারিবারিক নির্যাতন যা নারী-পুরুষ উভয়ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

ডিভোর্সের মানসিক প্রভাব

ডিভোর্স শুধু স্বামী বা স্ত্রীর আইনগত বিচ্ছেদ নয়। এর মাধ্যমে স্বামী-স্ত্রীর শারীরিক বিচ্ছেদ, মানসিক বিচ্ছেদ এবং সর্বোপরি সন্তানের সাথে তাদের সামগ্রিক সম্পর্কের টানাপড়েন। ডিভোর্স যে দেয় এবং যাকে দেয়া হয়- দুজনের উপরই ভিন্ন মানসিক প্রভাব পড়ে। যে ডিভোর্স দেয় সে ভীতিবোধ, নির্ভার, দূরত্ববোধ, অসহিষ্ণুতা, বিরক্তিবোধ, সন্দেহ ও অনুশোচনায় ভোগে। আর যাকে ডিভোর্স দেয়া হয় সে হতবিহ্বল, প্রতারিত, আত্মনিয়ন্ত্রণহীন, নির্যাতিত, আত্মমর্যাদা হ্রাস, নিরাপত্তাহীনতা বোধ করে। তারপর ক্রোধের মাঝে সান্ত্বনা খুঁজতে থাকে। ডিভোর্স হঠাৎ করে হয় না। ডিভোর্স একরাতে বা একটি দুর্ঘটনার ফল না। ডিভোর্সে শারীরিক বিচ্ছেদের পাশাপাশি মানসিক বিচ্ছেদ হয়ে থাকে। মানসিক বিচ্ছেদ বিভিন্ন ধাপে হয়ে থাকে যা কয়েক বছর ধরে চলতে পারে। আবেগী বিচ্ছেদের ধাপগুলো নিম্নরূপ:

ভ্রান্তিকর চিন্তা (যা মৌখিক প্রকাশের ১-২ বছর আগে শুরু হয় )

  • ভ্রান্ত অসন্তুষ্টি, অবিশ্বাস, তর্ক, বিরক্তি
  • বাস্তব সমস্যা অস্বীকার
  • দূরত্ব বৃদ্ধি ও পারস্পরিক আস্থাহীনতা
  • বিচ্ছেদের স্ট্রাটেজি ঠিক করা
  • এ সময়ের অনুভূতি: ভয়, অস্বীকৃতি, দুশ্চিন্তা, অনুশোচনা, ভালোবাসা, রাগ, বিষন্ণতা, শোক।

অসন্তুষ্টি প্রকাশ (আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের ৮-১২ মাস পূর্বে )

  • অসন্তুষ্টি প্রকাশ বা উভমুখী আচরণ
  • বিবাহ কাউন্সেলিং
  • এ সময়ের অনুভূতি: দায়হীন, টেনশন, রাগ, অনুশোচনা, তিক্ততা, সন্দেহ, শোক।

বিবাহচ্ছেদের সিদ্ধান্ত (আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের ৬-১২ মাস আগে )

  • আবেগের দূরত্ব তৈরী
  • কেউ কেউ ভ্রান্তিকর চিন্তার মধ্যে থাকে
  • উভয়ে নিজেকে নির্যাতিত মনে করে
  • এ সময়ের অনুভূতি: রাগ, বিরক্তি, বিষন্ণতা, পরিবার ও ভবিষ্যৎ নিয়ে দুশ্চিন্তা, অন্যের প্রতি অসহিষ্ণুতা।

সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কাজ করা (আইনি পদ্ধতি শুরু )

  • শারীরিক বিচ্ছেদ
  • মানসিক বিচ্ছেদ
  • নিজেকে পুনঃপ্রস্তুত করা
  • সবার সাথে ডিভোর্স নিয়ে কথা বলা
  • আইনি পদ্ধতি গ্রহণ
  • বন্ধু-পরিবারের পক্ষাবলম্বন
  • ছেলেমেয়েদের দায়িত্ববোধ
  • এ সময়ের অনুভূতি: আঘাতবোধ, আতঙ্কগ্রস্ততা, ভয়, লজ্জা, অনুশোচনাবোধ, ও দোয়ারোপ।

গ্রহণযোগ্যতা বাড়ানো (আইনি পদ্ধতি গ্রহণকালীন বা পরে )

  • শারীরিক ও মানসিক অ্যাডজাষ্টমেন্ট
  • বিবাহ সুখ বা পরিপূর্ণতা আনে না বলে মনে করা
  • নিজের মধ্যে শক্তি ও নিয়ন্ত্রণবোধ, ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা, নিজেকে নতুন করে পরিচয় দেওয়া, নিজেকে মেধাবী ও সম্পদের অধিকারী মনে করা
  • আত্মনিয়ন্ত্রণবো: মন আগের চেয়ে ভালো থাকা ও জীবনের দ্বিতীয় সুযোগ গ্রহণের আনন্দ অনুভব করা

নতুন করে শুরু ( আইনি প্রক্রিয়া শেষ করা থেকে পরবর্তী ৪ বছরের মধ্যে )

  • অভিযোগ ও রাগ বাদ দিয়ে মাফ দেওয়া ও সম্মান প্রদর্শন, নতুন করে জীবন সূচনা করা
  • অনুধাবন: অন্তর্দৃষ্টি, গ্রহণযোগ্যতা, সামগ্রিক সম্পৃক্ততা, তুলনামূলক সন্তুষ্টি ও আইনি বিবাদ শেষ করা। ডিভোর্সর প্রভাব স্বামী, স্ত্রী, সন্তান ও তাদের পরিবারে পড়ে থাকে। ডিভোর্স হলে একজন নারীর পরিবার তার প্রতি অনেকসময় সহযোগিতামূলক আচরণ করে না। নিরাপত্তাহীনতা ও সামাজিক স্টিগমা তাকে তার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করে। অর্থনৈতিকভাবে সে দরিদ্রতায় নিমজ্জিত হয়। শারীরিকভাবে সে অসুস্থ হয়ে যায়। গবেষণায় দেখা গেছে, বিধবা নারী বা পুরুষের অল্প বয়সে মৃত্যুর হার অন্যদের চেয়ে বেশি। ডিভোর্সের মানসিক প্রভাব সবচেয়ে বেশি। মানসিকভাবে একজন বিধবা নারী বা পুরুষ অন্যদের চেয়ে বেশি অসুখী থাকে। দুশ্চিন্তা, বিষন্ণতা, মাদকাসক্তি এবং আত্মহত্যার পথ বেছে নিতে পারে। পরিবার, কর্মক্ষেত্র এবং সামাজিকভাবে তাকে ভিন্ন চোখে দেখা হয়।

ডিভোর্স যখন আশীর্বাদ

কখনও কখনও ডিভোর্স জীবনে ভালো প্রভাব ফেলে। কোনো কোনো নারী ডিভোর্সকে প্রশান্তিকর মনে করে। এতে তার বিবাহিত জীবন অতিমাত্রায় তিক্ততায় ভরে যায় না এবং শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের কারণ হয় না। কাথনিল ও কন্নেল করকরাণের মতে, ডিভোর্স একজন নারীর জীবনে মা ও স্ত্রীর ভূমিকা ছাড়াও নতুন ক্যারিয়ার, সামাজিক যোগাযোগ এবং নিজের ও পেশাগত ভূমিকা পালনে সুযোগ করে দেয় যার তার মর্যাদা ও সম্মান বৃদ্ধি করে।

বিবাহ বা বিবাহচ্ছেদ দুটিই সামজিক প্রথা। এটা সভ্যতার বিকাশে আদিম অসভ্য মানুষকে সভ্য মানুষ হিসেবে একবিংশ শতাব্দিতে পৌঁছে দিয়েছে। বিবাহ মানুষকে নিয়ম-শৃঙ্খলা ও সামাজিক গ্রহণযোগ্য উপায়ে বংশানুক্রমিক করে তোলে। পারস্পরিক নির্ভরশীলতা ও পারিবারিক কাঠামো গঠনের মাধ্যমে সমাজ গঠনে ভূমিকা রাখে। বিবাহ তাই সামগ্রিকভাবে ইতিবাচক ও গুরুত্বপূর্ণ রীতি। কিন্তু কখনও কখনও অবশ্যম্ভাবী হয়ে ওঠে। তাই বিবাহবিচ্ছেদ সর্বদা নেতিবাচক না হয়ে ইতিবাচকও হতে পারে।

লিখেছেনঃ

ডা. মো. রশিদুল হক
এমবিবিএস (ডিএমসি ), বিসিএস (স্বাস্থ্য),এফসিপিএস(সাইকিয়াট্রি )
মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ ও রেজিষ্ট্রার, মানসিক রোগ বিভাগ
ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল

প্রথম সাক্ষাতেই মেয়েদের যে বিষয় গুলো লক্ষ্য করে ছেলেরা!

হঠাৎ পরিচয় হলো একজন পুরুষের সাথে।  বেশ কিছুক্ষন কথাবার্তাও হলো। বেশ আন্তরিক মানুষ বলেই মনে হলো তাকে প্রথম পরিচয়ে। মনে মনে মানুষটি সম্পর্কে অনেক কিছু ভেবে নিলেন আপনি। আচ্ছা, আপনারও কি জানতে ইচ্ছে করছে সেই মানুষটি আপনার মাঝে কী দেখলো? এমন কৌতুহল হতেই পারে আর সবসময় হয়, তাই না?

পুরুষরা নারীর মাঝে প্রথম দেখায় কী কী বিষয় লক্ষ্য করে তা নিয়ে অনেক তর্ক বিতর্ক আছে। তবে কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া বেশিরভাগ পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গি সাধারণত একই রকম হয়। আসুন জেনে নেয়া যাক পুরুষরা প্রথম দেখায় নারীর মাঝে লক্ষ্য করেন এমন ৭টি বিষয় সম্পর্কে।

দৈহিক সৌন্দর্য:

নারীর সাথে প্রথম দর্শনে পুরুষরা চেহারার বদলে নারীর দৈহিক সৌন্দর্য ও গঠন লক্ষ্য করে সবার আগে। সুন্দর ফিগারের অধিকারিণীদের প্রতি পুরুষদের আকর্ষণ থাকে বরাবরই বেশি। এক্ষেত্রে তাদের দৃষ্টি প্রথমেই যায় নারীর স্তন জোড়ার দিকে। এছাড়াও তারা কোমর, নিতম্ব ও পা দেখে থাকে তারা। বিভিন্ন গবেষনার জরিপে এই তথ্য পাওয়া গিয়েছে যে নারীর সাথে প্রথম দেখায় পুরুষরা তাদের স্তন, কোমর ও পা খেয়াল করে সবার আগে। সুন্দর ও অপেক্ষাকৃত লম্বা পায়ের অধিকারিণীদের প্রতি পুরুষদের আকর্ষন বেশি থাকে সবসময়। যদিও এই বিষয়টি অনেক পুরুষই স্বীকার করতে চায় না কারণ মনের অজান্তেই তারা কাজটি করে।

চোখ,হাসি ও চুল:

সুন্দর টানা টানা চোখ সব পুরুষই পছন্দ করে। আর তাই নারীর সাথে প্রথম দর্শনে কথা বলার সময় পুরুষরা শরীরের পরেই চোখের দিকে লক্ষ্য করে। চোখ সুন্দর হলে অপলক সেই চোখের দিকে তাকিয়ে থেকে কথা বলে তারা। এছাড়া চোখের চাহনিও খেয়াল করে সর্বক্ষণ। হাসির সৌন্দর্যটাও বেশ মনোযোগ দিয়েই দেখে পুরুষেরা। নারীর চুলের প্রতিও পুরুষদের আগ্রহ অপরিসীম। আর তাই একজন নারীর সাথে প্রথম পরিচয়ে তারা সেই নারীর চুল ও চুলের স্টাইল লক্ষ্য করে। সুন্দর চুল ও হেয়ার কাটের নারীদের প্রতি তারা বেশি আকর্ষনবোধ করে।

উচ্ছলতা:

হাসিখুশি নারীদের প্রতি পুরুষদের আকর্ষন চিরন্তন। আর এই চিরন্তন আকর্ষনের কারণে প্রথম দর্শনেই পুরুষরা নারীদের হাসি খেয়াল করে। একজন নারীর সাথে প্রথম পরিচয়ে তারা সেই নারীর হাসি কেমন, সে কী মন খুলে হাসে কিনা কিংবা মেয়েটি হাসিখুশি নাকি গম্ভীর ইত্যাদি বিষয়গুলো লক্ষ্য করে।

বুদ্ধিমত্তা:

প্রথম দর্শনেই কথা বলার সময় নারীর বুদ্ধিমতার বিষয়টি বেশ মনোযোগ সহকারেই খেয়াল করে পুরুষরা। কথা বার্তা বলার সময় উপস্থিত বুদ্ধিও নজর কাড়ে তাদের। উপস্থিত বুদ্ধি সম্পন্ন নারীদেরকে পুরুষরা বেশ পছন্দ করে এবং তাদের প্রতি তীব্র আকর্ষন বোধ করে।

কন্ঠস্বর ও কথা বলার ভঙ্গি:

একজন নারীর সাথে প্রথম পরিচয়ের সময় পুরুষরা নারীর কন্ঠস্বর ও কথা বলার ভঙ্গি খেয়াল করে। সুন্দর মিষ্টি কন্ঠ ও স্পষ্ট সুন্দর উচ্চারনের নারীরা পুরুষদের মনোযোগ আকর্ষন করে ও ভালো লাগার অনুভূতি তৈরী করে।

রসবোধ:

বলা হয়ে থাকে যে নারীরা পুরুষের মাঝে রসবোধের উপস্থিতি পছন্দ করে। এক্ষেত্রে পুরুষরাও কিন্তু পিছিয়ে নেই। পুরুষরাও নারীদের মাঝে রসবোধের উপস্থিতি খুবই পছন্দ করে। প্রথম বার কথা বলার সময়েই তারা এই বিষয়টি নারীদের মাঝে খোঁজে এবং বেশ আগ্রহ সহকারে লক্ষ্য করে। তাদের রসিকতাকে নারীরা কিভাবে গ্রহণ করছে সেই বিষয়টিও তারা লক্ষ্য করে।

পোশাক:

প্রথম সাক্ষাতে নারীর পোশাকের দিকে খেয়াল করে কম বেশি সব পুরুষ। কেমন পোশাক পড়েছে, কি রঙ, রুচিশীল নাকি বেমানান ইত্যাদি বিষয়গুলো খেলা করে পুরুষরা নারীর সাথে প্রথম দেখায়। এমনকি পোষাকের সাথে ব্যাগ ও জুতা ম্যাচিং করে পড়েছে কিনা সেটাও তাদের চোখ এড়ায় না।

সুত্রঃ দেশে বিদেশে

রুপ চর্চায় ফুল

fulফুলের রং আর মিষ্টি সুবাসে মন যেমন ভরে ওঠে, ঠিক তেমনি ফুল দিয়ে সাজতে পছন্দও করেন অনেকে। কেউ খোঁপায় ফুল গোঁজেন, তো কেউ হাতে জড়ান বেলি বা বকুল ফুলের মালা। আবার ত্বক ও চুলের যত্নে অন্যান্য প্রাকৃতিক উপাদানের পাশাপাশি ব্যবহার করা হয় ফুল।

রূপচর্চায় ফুলের ভূমিকা প্রসঙ্গে জানালেন হারমনি স্পা’র আয়ুর্বেদিক রূপবিশেষজ্ঞ রাহিমা সুলতানা। জেনে নিন রূপচর্চায় ফুলের কিছু ব্যবহার—

গোলাপ
গোলাপ ফুলের সঙ্গে মধু ও লাল আতা মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্বক হয়ে উঠবে মসৃণ, উজ্জ্বল ও সতেজ।
ক্যামেলিয়া
ক্যামেলিয়া ফুল, দুধ ও চালের গুঁড়া একসঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্বক গভীরভাবে পরিষ্কার হবে আর ত্বক ফিরে পাবে লাবণ্য।
শাপলা
শাপলা ফুল, নিমের তেল ও তিল বাটা একসঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ব্রণ কমে যাবে।
বেলি
বেলি ফুলের সঙ্গে ঘৃতকুমারী ও মধু মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্বক টানটান ও মসৃণ হয়ে উঠবে।
জবা
জবা ফুল ও চালের গুঁড়ার মিশ্রণ ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে সাহায্য করে। এ ছাড়া এর সঙ্গে তিলের তেল মিশিয়ে চুলে লাগালে তা নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে।
কিছু সতর্কতা
বিভিন্ন মৌসুমে যেসব ফুল পাওয়া যায়, সেগুলো রূপচর্চায় কাজে লাগানো যেতেই পারে, তবে এর কোনোটিই সরাসরি ব্যবহার করা উচিত নয়, অবশ্যই কোনো কিছুর সঙ্গে মিশিয়ে ব্যবহার করা উচিত। কারণ, কোনোটির অম্লত্ব বেশি হতে পারে, আর সে ক্ষেত্রে হিতে বিপরীতও হতে পারে। তাই সরাসরি কোনো ফুল ত্বকে বা চুলে ব্যবহার করবেন না।

তথ্য সূত্রঃ নকশা