fbpx

জীবনসঙ্গী খুঁজতে বিবাহ বিডি

উচ্চ শিক্ষা শেষে প্রতিষ্ঠা পাবার পরেও যদি যোগ্য সঙ্গীর সন্ধান না পাওয়ায় কারনে বিয়ের ব্যাপারে হতাশায় ভোগে থাকেন তবে আপনার জন্যই অনলাইন বেইজ ম্যাট্রিমনিয়াল সার্ভিস বিবাহ বিডি ডট কম

ঘরে বসেই ফ্রী রেজিষ্ট্রেশন করে  চাহিদা অনুযায়ী পাত্র/পাত্রীদের প্রোফাইল দেখে পাত্র/পাত্রী বা অভিভাবকের সাথে সরাসরি নিজেরাই যোগাযোগ করতে সক্ষম হবেন এবং তা অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যে ।

বিবাহবিডি ডট কম দুই ভাবে সেবা নিশ্চিত করে

১) সেলফ সার্ভিসঃ বিবাহবিডির সেলফ সার্ভিস বা স্বপরিবেশন সেবায় একজন ইউজার নিজেই বিবাহবিডির ওয়েবসাইটে লগইন করে অসংখ্য প্রোফাইল থেকে পছন্দের প্রোফাইলগুলো বাছাই করে পাত্রপাত্রী বা অভিভাবকের সাথে নিজেই সরাসরি যোগাযোগ করে থাকেন।

২) এসিষ্টেন্স সার্ভিসঃ এসিষ্টেন্স বা সহায়তা পরিসেবায় একজন ম্যাচমেকিং ইউজারকে বিবাহবিডি টিম পার্টনার প্রেফারেন্স / পছন্দ অনুযায়ী প্রোফাইল পাঠায়ে ইউজারের সম্মতি নিয়ে দু পক্ষের মধ্যে মিটিং এর আয়োজন করে। এই সেবার আওতায় একজন ইউজার চাইলে নিজেও অনলাইনে সিভি দেখতে পারেন আবার অফলাইনে থেকেও সেবা নিতে পারেন।

বিবাহবিডি যে সকল সেবা প্রদান করে থাকে

১) ম্যাট্রিমনিয়াল ইনভেষ্টিগেশন বা বিবাহপূর্ব পাত্র পাত্রীর তথ্য অনুসন্ধান
২) লিগ্যাল সার্ভিস বা আইনি পরিসেবা

যে ধরনের পাত্রপাত্রীর প্রোফাইল পাবেনঃ
৮৪ টি প্রফেশন ক্যাটাগরীর, যেকোন শিক্ষাগত যোগ্যতা, যেকোন ধর্মাবলম্বী – গোত্র কিংবা কাষ্টের, যেকোন বয়সের অবিবাহিত, ডিভোর্স,  বিধবা, বিপত্নীক, বাংলাদেশের যেকোন জেলার অধিবাসী, এবং বিশ্বের প্রায় ১৫০ টি দেশে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশী।  তাছাড়াও বিবাহ বিডিতে রয়েছে কিছু ষ্পেশাল সার্চ ক্যাটাগরী যেমন – ডিসেবেলীটিস সার্চ (শারীরিক বা স্বাস্থ্যগত প্রতিবন্ধকতা আছে এমন), সিঙ্গেল ফাদার / মাদার  সার্চ ( ডিভোর্স কিংবা বিধবা/বিপত্নীক ও সন্তান আছে এমন )।

কেন বিবাহবিডিতে পাত্র/পাত্রী খুঁজবেনঃ
জীবন একটাই  আর একটি সুখী ও সুন্দর জীবনের জন্য চাই একজন সুন্দর মনের মানুষ। অসংখ্য প্রোফাইল দেখে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌছাতে নিজেই বিবাহবিডিতে প্রোফাইল করুন, নিজেই খুঁজুন এবং নিজেরাই পাত্র/পাত্রী কিংবা তাদের অভিভাবকের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করুন।  এতে লোক জানাজানির ঝামেলা যেমন নেই তেমনি খরচ ও অনেক কম।

প্রথমেই দেখে নিন কোন কোন প্রফেশনের কত জন পাত্র/পাত্রী এই মূহুর্তে বিবাহবিডিতে রয়েছে। তারপর রেজিষ্ট্রেশন করতে লিংকে ক্লিক করুন 


এই অডিওটি আপনাকে বিবাহবিডি সেবা সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবে।


যারা দাম্পত্য জীবনে সেপারেটেড আছেন কিংবা ইতিমধ্যে ডিভোর্স নিয়েছেন, তাদের জন্য বিবাহবিডিতে রয়েছে – ম্যারিটাল ষ্টেটাস সার্চ ইজি সার্চ  অপশন যেখানে খুব সহজেই ডিভোর্স, বিধবা/বিপত্নীক, সেপারেটেড সহ [সিংগেল ফাদার] , [সিংগেল মাদার] প্রোফাইল গুলো ক্যাটাগরী অনুযায়ি সুবিন্যস্ত রয়েছে। 


আপনি যদি বিয়ের ব্যাপারে সিরিয়াস হয়ে থাকেন তবে
লিংকে ক্লিক করে ফ্রী রেজিষ্ট্রেশন করুন   
অথবা বিস্তারিত জানতেঃ ০১৯২২ ১১ ৫৫৫৫  


বিবাহবিডির সার্ভিস সম্পর্কে পূর্নাঙ্গ ধারনা পাওয়া যাবে –

বিবাহবিডির কাষ্টমার সাপোর্ট (০১৯২২ ১১ ৫৫৫৫) সাহায্য নিতে পারেন।

আপনার রেজিষ্ট্রেশন টি সম্পূর্ন হয়ে গেলে বিবাহবিডির একজন কাষ্টমার সাপোর্ট এক্সিকিউটিভ আপনার প্রদত্ত তথ্যগুলো ফোনে রিভিও করে আপনাকে ৩ দিনের জন্য বিবাহবিডিতে ফ্রী ট্রায়াল মেম্বারশীপ দিবে ও বিবাহবিডির সার্ভিস সম্পর্কে পূর্নাঙ্গ ধারনা দিবে।


পাঠকের সুবিধার্থে বিবাহবিডির সরাসরি কয়েকটি সার্চ রিজাল্টের লিংক নিম্নে দেয়া হলোঃ


Support Center:

DHAKA OFFICE:

HOUSE: 02 (3rd Floor) BLOCK: G,
SOUTH BANASREE, KHILGAON, DHAKA
BANGLADESH


CHITTAGONG OFFICE:

HOUSE # 170, ROAD NO # 2, BLOCK: D,
SUGONDHA, CHATTOGRAM, BANGLADESH

Hotline : +8809612211555, +8801922115555


বিবাহবিডি ডট কম অফিস লোকেশন 

Meet your life partner on Bibahabd

Choosing the person you want to marry or commit to forever is serious matter, and it demands a lot of thought, responsibility, and honesty.

But once you’ve found that special person, all of your hard work will be worth it and you can get ready for a lifetime of happiness join bibahabd for to meet your life partner on Bibahabd.

There are many trusted Bangladeshi Matrimonial websites with good amount of brand name.

In the modern age, matrimonial websites are redefining the traditional way of meeting people for marriage. Matrimonial services have now becomes in to a world renowned service.

You just need to register your profile on the website.

If there is any matter of urgency and you can avail more benefits by registering in the premium membership by paying few sign up fees.

The system posses will be same as others sites like you have to register into their portal like email id, cell number and your family preferences, about your qualifications, caste, education , appearance, occupation and residence address etc.

You can choose bride or groom from a prospect of thousands of profiles without any difficulty. Below are some benefits of using Matrimonial websites for searching respective bride and grooms.

Bangladeshi Matchmaker
Best Matchmaker in Bangladesh | Bibahabd is An International Marriage Bureau

Advantages of online matrimony:

  • Easy to use
  • Easy to check compatibility
  • Easy User Friendly options
  • Data Security
  • Easy Functions
  • User Friendliness

The growing number of matrimonial websites preaches the various choices they offer to its users and making easy to find a suitable partner.

With matchmakingmatrimonial services offer marriage counseling to help out couples with advice how to deal and make it work. Currently in our country, the numbers of websites which are offering matrimonial services are more than hundreds.

Community is very large and has a big number of users, who uses internet for a multiple type of services from buying cloth to searching matrimonial profile for marriage purposes.

Online matrimony websites is searched by eligible singles, parents, brothers, sisters even friend to find a suitable bride or groom for their near and dear ones. In online matrimony, you can easily know other person interest, personality, quality, background by filtering the profiles and chatting. You can choose from a large pool of options by deploying search methods to find a good spouse for your life.

Process of Matchmaking:

  • Easy registration
  • Package selection
  • Matchmaking
  • Searching Option
  • Compatibility

Easy registration:

Registering your profile in matrimonial websites is very easy. The navigation in websites are simple and can be used by semi computer literate persons. Her at first, you have to give information regarding your personal information, educational information, preferences, contact information and username, password for security. All the data provided by you will be kept confidential and cannot be viewed by third party users.

Package selection:

After registrations, there are few options are available for membership. Every membership have price point and you can subscribe to any option according to your budget and interests. You can choose an package and payments option according to your choices.

Matchmaking:

After becoming a member of the community, you are eligible to view other profiles and communicate through chats and messages. You can extend your interest to any profile and contact each other with mutual consents. All the communication between interested single will be kept under utmost confidential for privacy.

Searching Option:

You can execute search option in websites according to your preferences. You can go through educational, occupational and location search for best results in matrimonial websites. All the online members in matrimonial websites are more chances of match making due the filter of your preferences at first of your search.

Lots of youth are benefiting from the matrimonial websites in this modern age. In today era, matrimonial websites have changed the traditional approach for choosing a life partner.

Online matrimony provides the comfort and choice of millions of prospects and much more information about a prospect marriage proposal. In future, market continues to evolve, bring in more customers and serve to new generations, online matrimony will continue to thrive in Bangladesh for a very long time to come.

Matrimonial sites in Bangladesh operate on the basis of bringing in technology to execute the fact called as arranged marriage.

Best Marriage Media Bangladesh

Bibahabd makes for a perfect substitute for millions of Bangladeshis who are now connected to the web and still belong to traditional beliefs.

Best Marriage Media BIBAHABD are most definitely a preferred substitute to conventional sources to find brides and grooms.

Best Marriage Media in Bangladesh
Best Marriage Media in Bangladesh

Easy to Search:

It is simple for anyone to simply log onto Bibahabd of their choice and register by uploading a bio-data with information of their choice.

It offers user-friendly interfaces for youth as well as parents to conduct searches based on their preferences and initiative conversation with a click of a mouse.

This ideal blend between Bangladeshi traditional systems and modern technology has made it possible for Bangladeshi bachelors and spinsters around the world and explore and find themselves the perfect match for life.

Bibahabd Matrimony profiles of an individual:

  • Contact profile
  • Work/career profile
  • Location profile
  • Physical profile
  • Religious profile
  • Community profile
  • Personality profile
  • Family profile
  • Photographs / Documents support

There are many advantages of using “BIBAHABD” – Bangladeshi matrimonial Service, such as some Bibahabd sites permit chatting with other interested individual by live chat options.

Everyone can perform a matrimonial registration to help your acquaintances finding a perfect life partner.

This is the most helpful way to understand each other liking and disliking. That is actually factual that marriage will occur once in a life.

Always give unquestionable and dependable queries, unless data will mislead your all future. So present yourself as you are.

Today in Bangladeshi people search their life colleague as par their alternative.

This is a nice way to search for marriage partners but sometimes there are fake profiles to mislead people.

It’s genuinely tough to find the genuine persons with genuine profile in these Bangladeshi matrimonial sites.

But still your good efforts to ascertain each and every profile methodically and make online matrimony an astonishing experience for you.

Advantages of BIBHABD Matrimony Service

  • Economic — Save Time and Money
  • Easily Accessible
  • Filtered Results
  • Easy to Communicate
  • Informative
  • Unlimited Choice
  • Advanced Search
  • Availability of Picture and Video
  • Authenticity
  • Privacy
  • Past History

Choosing from the Hundred of matrimonial sites in a country like Bangladesh is a problem. Many matrimonial websites boast high success rate and flexible features with paid or free membership option.

In recent time, community based matrimonial sites are booming and traditional approach still a way for matrimonial search.

Matrimonial site BIBAHABD makes matchmaking process easier, as the details of a suitable partner are just a click away.

Matrimonial Service Bibahabd is easy to use and all you have to do is register, create profile, give your requirement specification details, you can set filters, and express your interest.

The matrimonial system brings you only relevant profiles and assures mostly 100% safety. You can choose to provide your contact location details to only those you are.

Paid memberships allow you to get the phone number, email or chat with the person you are interested in. Normally, Registration is free and but paid premium membership is available for extended services.


Why Bangladeshi Matrimonial Service BIBAHABD is the best solution:
Marriage itself is a sacred bond that occurs not only between a bride and a groom but also between their respective families.

The bond is not dependent on the type of marriage or even how extravagant the matrimony may be. Neither a love marriage nor an arranged marriage can guarantee success and both have their own advantages and disadvantages.

Online matrimonial Service
BIBAHABD is still a part of arranged marriage as even with online services, parents continue to perform the role of initiating, searching and filtering potential partners.

The use of online matrimonial services in fact seems to make it easier to find someone within the sub-caste, religion or community of your choice.

 It is evident that online matrimonial services have introduced new elements into the process of arranging marriage that are made possible by technology.

Online matrimonial, electronics dating and matrimonial web sites are changing the rules of how relationships are formed and maintained in communities all over the world.

For more information –
visit our website | www.bibahabd.com

Best 3 Matrimony Site in Bangladesh 2022

If you are still undecided about marriage, you have not been able to find a suitable match for you or your beloved family member –

Even after you have established higher education, then you should register at one of the most acceptable Best 3 Matrimony Site in Bangladesh 2022.

However, one thing you must note is that in the global COVID pandemic, many traditional matchmakers in Bangladesh try to convert their services online, but their service system is not very good.

Because they are inexperienced in online services, there are many complaints about them.

We have selected the Best 3 Bangladeshi Matrimony companies offering online / Offline matrimony services their skills and long time business stability.

All these companies will give you really good service. All of them have experience of 12-15 years of giving professional service.

Where you will be able to quickly contact yourself directly by looking at the numerous profiles of your choice –

Bibahabd is an international matrimonial web portal founded 1st Feb 2007 under a renowned group of company, aimed at fulfilling the needs of Bangladeshis both at home and abroad.

It is designed to provide its members a secured and private environment to find their ultimate life partners by providing them a trusted source of genuine people trying to find their soul mates.

The platform bibahabd allows members to search, communicate, interact and finally find the right person for them or their loved ones.

Bibahabd believes that marriages are made in heaven and we only intend in realizing those dreams. It is a site for the generation of today and the future.

Best 3 Matrimony Site in Bangladesh.
Bibahabd | Bangladeshi Matrimony Service

Bibahabd Win BASIS National ICT Awards – 2017 under Category: Inclusion & Community.

Bangladeshi pioneer matrimonial web portal Bibahabd is one of the best Bangladeshi matrimonial websites.

Their support team ensures 24/7 days’ service. If you want profession service, you can safely open account here.

  • Bibahabd Specialty:
  • Reliability and Trustworthiness since individuals are entering their profiles personally it provides high reliability
  • Verification of Profiles Select profiles can be verified by Bibahabd.com Team
  • Meeting Bibahabd.com responsible for “private matrimonial discussion” only for Matchmaking Member.
  • Unlimited Time Being on web, it can be browsed at any time and all the time
  • Various Category offers a wide category of preferences close to you
  • Unlimited Profiles being international and on web anyone can become a member thus unlimited profiles
  • Highly Secured it ensures high level of privacy

Bibahabd.com will activate your profile after verbal verification with valid documents.

  • Borbodhu

Finding the right life partner is one of the most important and difficult tasks of one’s life. Our goal is to help you in the process of finding your perfect partner.

We do everything we can to achieve this goal. Since we first founded in 2007, over the decade we have helped thousands of people find their life partner.

We take pride in providing outstanding customer service, realizable service with true result.

Borbodhu team is a team of hardworking, honest and friendly people that strives in providing ultimate partner search experience and believes that our action and service will determine our destiny. We are proud to serve our members for last 12 year.

Finally, we take privacy and security very seriously. Your information and privacy is safe with us.

We will not share your information with anyone without your permission.

At borbodhu.com, we wish you a happy journey in finding your life partner and we are proud to be part of it. Start finding your life partner now.

Borbodhu
Borbodu
  • Sensible Match

SensibleMatch is the most trusted matrimonial website in Bangladesh. Quietly making happy marriages possible among brides and grooms located around the world.

Sensible Match
Sensible Match

We care about your privacy and we take every step possible to protect it.

We have our office in Dhaka where our matchmakers are working hard to provide dedicated & personalized services to find the most suitable bride or groom for you.

If you are busy, and do not have a lot of time to find the perfect match for you, our matchmakers are available to help. We are the ‘marriage media’ of the digital era.

The 3 Best Matrimony organizations of Bangladesh that are presented, you can get a good profiles from here and there is no chance of any kind of harassment in the case of this service organization.

They are experienced in online services so feel free to profile.

ঐতিহাসিক রায়
বিবাহবহির্ভূত সন্তান সম্পত্তির উত্তরাধিকারী

গত বছরের ৩১ মার্চ একটি যুগান্তকারী রায় প্রদান করেছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। রিভানাসিদ্ধাপা ও অন্যান্য বনাম মালিক অর্জুন ও অন্যান্য ২০১১ মামলার রায়ে বলা হয়, ‘আইনগত বিবাহবহির্ভূত সন্তান বৈধ সন্তান হিসেবে গণ্য হবে এবং পিতামাতার অর্জিত ও পৈতৃক সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবে।’ আপিল বিভাগের এ রায় পুনর্বিবেচনার জন্য সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ (বৃহত্তর বেঞ্চ) বরাবর মামলার নথিপত্র প্রেরণ করা হয়। যে ঘটনার প্রেক্ষাপটে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট এ রায় প্রদান করেন, তার সূত্রপাত ঘটে ভারতের কর্ণাটকে। মামলার বাদীপক্ষে ছিলেন মালিক অর্জুনের প্রথম স্ত্রী ও তাঁর দুই সন্তান আর বিবাদীপক্ষে ছিলেন মালিক অর্জুন, তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী ও দুই সন্তান। বাদীপক্ষ পৈতৃক সূত্রে প্রাপ্ত যৌথ অংশীদারি সম্পত্তিতে তাদের অংশ দখলের দাবিতে কর্ণাটকের বিচারিক আদালতে বাটোয়ারা মামলা করে। মামলায় বাদীপক্ষ দাবি করে, তিনি বিবাদীর বৈধ স্ত্রী এবং তাঁর দুই সন্তানসহ বিবাদীর সঙ্গে অংশীদারি সম্পত্তির অংশীদার। সেই সঙ্গে তিনি আরো দাবি করেন যে বিবাদীর দ্বিতীয় বিবাহ অবৈধ। কারণ তাঁর প্রথম বিবাহ বর্তমান থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিবাহ ও তাঁদের সন্তানের জন্ম হয়েছে, যার ফলে তারা অংশীদারি সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবে না।

কর্ণাটকের বিচারিক আদালত বাদীর দাবির পক্ষে রায় প্রদান করে বলেন, বিবাদীর দ্বিতীয় স্ত্রী ও তাঁর সন্তানরা অবৈধ। কারণ প্রথম স্ত্রী বর্তমান থাকা অবস্থায় বিবাদী দ্বিতীয় বিবাহে আবদ্ধ হয়েছেন। ফলে বাদীপক্ষ দাবীকৃত সম্পত্তির অংশীদার এবং দ্বিতীয় স্ত্রী ও তাঁর সন্তানরা ওই সম্পত্তির অংশীদার নন। বিবাদীপক্ষ অর্থাৎ মালিক অর্জুন ও তাঁর দ্বিতীয় স্ত্রী ও দুই সন্তান ওই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করেন। উচ্চ আদালত বিচারিক আদালতের রায়ের বিপরীতে হিন্দু বিবাহ আইন ১৯৫৫-এর ১৬(৩) ধারা উল্লেখ করে বলেন, বিবাহবহির্ভূত সন্তান বৈধ সন্তান হিসেবে বাদীপক্ষের সঙ্গে যৌথ পারিবারিক সম্পত্তির অংশ দাবি করতে পারবেন। এ রায়ে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে বাদীপক্ষ অর্থাৎ মালিক অর্জুনের প্রথম স্ত্রী ও তাঁর সন্তানরা হাইকোর্ট বিভাগে প্রথম আপিল করেন। আপিলের রায়ে বলা হয়, যেহেতু দ্বিতীয় বিবাহ ও তাঁর সন্তানরা অবৈধ, সেহেতু অবৈধ সন্তানরা ‘জন্মসূত্রে’ যৌথ অংশীদারি সম্পত্তির অধিকারী নন। সন্তানরা শুধু পিতা-মাতার অর্জিত সম্পত্তির অধিকারী হবেন। আদালত সেই সঙ্গে আরো বলেন, বিবাদীর দ্বিতীয় পক্ষের সন্তানরা পিতার মৃত্যুর পর সম্পত্তির অংশীদার হবেন। ওই প্র্রেক্ষাপটে বিবাদীপক্ষ অর্থাৎ মালিক অর্জুনের দ্বিতীয় স্ত্রী ও তাঁর সন্তানরা আপিল বিভাগে বর্তমান দ্বিতীয় আপিলটি করেন। রায়ে বিচারক জি এস সিংভি ও এ কে গাঙ্গুলি ঘোষণা করেন, ‘আইনগত বিবাহবহির্ভূত সন্তান বৈধ সন্তান হিসেবে গণ্য হবেন এবং পিতা-মাতার অর্জিত ও পৈতৃক সম্পত্তির উত্তরাধিকারী হবেন।’ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ (২ নম্বর আদালত) যেসব পর্যবেক্ষণ ও আইনের বিধানের পরিপ্রেক্ষিতে রায় প্রদান করেন তা হলো : পূর্ববর্তী আদালতগুলো হিন্দু বিবাহ আইনের ১৬(৩) ধারাকে অনেক সংকীর্ণ অর্থে দেখেছেন। ১৯৭৬ সালে হিন্দু বিবাহ আইনে ১৯৫৫-এর ১৬ ধারা সংশোধিত হয়। সংশোধিত ১৬(১) ও (২) ধারায় বিবাহবহির্ভূত সন্তানকে বৈধ সন্তানের স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ১৬(৩) ধারায় উলি্লখিত ‘সম্পত্তি’ অর্জিত, না শরিক, না পৈতৃক সম্পত্তি তা পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করা হয়নি। তাই ১৬(৩) ধারা অনুযায়ী সম্পত্তির অধিকারের ক্ষেত্রে বিবাহবহির্ভূত কোনো সন্তানের প্রতি বৈষম্য করা যাবে না। এর পরও এ ধারার একটি সীমাবদ্ধতা রয়েছে। সংশোধিত ১৬ অনুযায়ী বিবাহবহির্ভূত সন্তান বৈধ সন্তানের মতো পিতা-মাতার জীবদ্দশায় পৈতৃক বা অংশীদারি সম্পত্তির অংশ দাবি করতে পারেন না। কেবল পিতার মৃত্যুর পর তা দাবি করতে পারেন।

রায়ে আদালত হিন্দু বিবাহ আইন সংশোধনের দর্শনগত দিকটিও ব্যাখ্যা করেন। তাতে বলা হয়, সমাজে অতীতে যা অবৈধ ছিল বর্তমানে তা বৈধ হতেও পারে। কারণ সামাজিক ঐকমত্যের ভিত্তিতে বৈধতার ধারণা এগিয়ে যায়। আর আইনের কাজ হচ্ছে সমাজের এই পরিবর্তনগুলো সংশোধনের মাধ্যমে অন্তর্ভুক্ত করা। এ ক্ষেত্রেও বলা যায়, পিতা-মাতার সম্পর্ক আইন দ্বারা অনুমোদিত নাও হতে পারে, কিন্তু সন্তানের জন্মকে পিতা-মাতার স্বাধীন সম্পর্কের ভিত্তিতে দেখতে হবে এবং এ ধরনের সম্পর্কের ভিত্তিতে জন্মগ্রহণকারী সন্তান বৈধ সন্তানের মতো অধিকার ভোগ করবে। পাশাপাশি ভারতের সংবিধানের প্রস্তাবনায় বলা আছে, প্রত্যেক ব্যক্তি মর্যাদা, অবস্থান ও সুযোগের ক্ষেত্রে সমান অধিকার পাবে। সংবিধানের ৩৭ নম্বর অনুচ্ছেদে আরো বলা আছে, রাষ্ট্র কর্তৃক আইন তৈরির সময় সংবিধানে উলি্লখিত রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতিকে স্বীকৃতি দিতে হবে। ৩৯(ঙ) ও ৩০০(ক) অনুচ্ছেদে বলা আছে, আইন দ্বারা কোনো ব্যক্তিকে সম্পত্তির অধিকারবঞ্চিত করা যাবে না। সুত্রঃ কালের কন্ঠ

তালাক, একে-অপরের বিরুদ্ধে মামলা ও তার ফলাফল

আইনের ভাষায় তালাক হচ্ছে ‘বিবাহ বন্ধন ছিন্ন করা অর্থাৎ স্বামী স্ত্রীর পারস্পরিক সম্পর্ক যদি এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যে, একত্রে বসবাস করা উভয়ের পক্ষেই বা যে কোন এক পক্ষের সম্ভব হয় না, সেক্ষেত্রে তারা নির্দিষ্ট উপায়ে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটাতে পারে।’

সুমির (ছদ্ম নাম) দাম্পত্য জীবনে এমনটিই ঘটেছিল। অবশেষে তিনি তার স্বামীকে তালাক প্রদান করেন। কাবিননামার ১৮ নম্বর ঘরে স্বামী-স্ত্রী একে অপরকে তালাক প্রদানের ক্ষমতা দেওয়া ছিল। সেই অধিকারের ভিত্তিতে সুমী স্থানীয় কাজি অফিস থেকে তালাকের যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ করে তালাকনামা স্বামীর বরাবর পাঠিয়ে দেন। কিন্তু স্বামীর বসবাসরত স্থানীয় চেয়ারম্যান অফিসে পাঠানো হয়নি কোনো তালাকের কপি। সুমীর এ বিষয়টি জানা ছিল না। স্থানীয় কাজি অফিস থেকেও পাঠানো হয়নি কোনো কপি।

কিন্তু আইন অনুযায়ী স্বামী বা স্ত্রী যে কেউ একে অপরকে তালাক দিতে চাইলে তাকে যে কোন পদ্ধতির তালাক ঘোষণার পর যথাশীঘ্রই সম্ভব স্থানীয় ইউপি/পৌর/সিটি মেয়রকে লিখিতভাবে তালাকের নোটিশ দিতে হবে এবং তালাক গ্রহীতাকে উক্ত নোটিশের নকল প্রদান করতে হবে। চেয়ারম্যান/মেয়র নোটিশ প্রাপ্তির তারিখ হতে নব্বই দিন অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত কোনো তালাক বলবৎ হবে না। কারন নোটিশ প্রাপ্তির ত্রিশ দিনের মধ্যে চেয়ারম্যান/মেয়র সংশ্লিষ্ট পক্ষদ্বয়ের মধ্যে আপোষ বা সমঝোতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে সালিশী পরিষদ গঠন করবে এবং উক্ত সালিশী পরিষদ এ জাতীয় সমঝোতার (পুনর্মিলনের) জন্য প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থাই  অবলম্বন করবে।

সুমী তালাকনামায় যেদিন স্বাক্ষর করেন, সেদিন থেকে পার হয়ে যায় দুই মাস। এর মানে ৯০ দিন ইদ্দতকাল পালন হতে হলে আর মাত্র এক মাস অপেক্ষা করতে হবে। সুমীর স্বামী আইনি দুর্বলতার সুযোগে এরই মধ্যে সুমীকে তার কাছে ফিরে পেতে পারিবারিক আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলাটির নাম দাম্পত্য অধিকার পুনরুদ্ধার মামলা। এই মূল মামলাটি করার এক সপ্তাহ পর সুমীর স্বামী একই আদালতে একটি অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন করেন এই মর্মে যে, সুমী যাতে অন্য কোথাও বিয়ে না করতে পারেন। এই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত সুমী ও তার বাবাকে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আপত্তি দাখিলের জন্য ১০ দিনের সময় দিয়ে তাদের ঠিকানায়  সমন পাঠিয়ে দেয়।

সমন হাতে পেয়ে সুমীর চেহারায় দুশ্চিন্তা আর অস্থিরতার ছাপ স্পষ্ট হয়ে উঠে। তার বাবাও হয়ে পড়ে বিধ্বস্ত। কারন এক মাসে দুটি সমন তারা পান। একটি দাম্পত্য অধিকার পুনরুদ্ধার মামলার লিখিত জবাব দাখিলের জন্য, আরেকটি অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আপত্তি দাখিলের জন্য।

দাম্পত্য অধিকার পুনরুদ্ধার মামলায় বিবাদী করা হয়েছে তিনজনকে। প্রথম বিবাদী সুমীর বাবা, দ্বিতীয় বিবাদী তার মা এবং তৃতীয় বিবাদী সুমী নিজে। আরজিতে সুমীর স্বামীর অভিযোগ, তাঁর স্ত্রীকে জোর করে তালাক দিতে বাধ্য করেছেন তার বাবা। এখন তিনি তাকে নিয়ে ঘর করতে চান। কিন্তু সুমীর ভাষায়, তার স্বামী দুশ্চরিত্রের লোক। নানাভাবে অত্যাচার করত। বাইরে মদ আর নারী নিয়ে ব্যস্ত থাকত। জুয়া খেলত। স্ত্রী আর তার মেয়ের প্রতি কোনো খেয়াল রাখত না। এমন পাষণ্ড আর নির্দয় লোকের সঙ্গে ঘর করার চেয়ে একা থাকা ভালো-এই সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে বাধ্য হয়ে তাকে তাকে তালাক দিই।

সুমী যাতে অন্য কোথাও বিয়ে না করতে পারেন এই অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদনে সুমীর স্বামীর অভিযোগ ‘বিবাদীগণ পরস্পর যোগসাজশে অন্যায় ও বেআইনিভাবে ৩ নম্বর বিবাদীকে অর্থাৎ তার স্ত্রীকে ইদ্দতকালীন সময়ের মধ্যেই অন্যত্র পুনঃবিবাহ দেওয়ার জোর অপতৎপরতায় লিপ্ত হইয়া জনৈক চাকুরীজীবী পাত্র নির্বাচন করিয়া ফেলিয়াছেন এবং যেকোন সময় তার স্ত্রীকে উক্ত পাত্রের সহিত বেআইনীভাবে পুনঃবিবাহ সংঘটন করিতে পারেন।’

কিন্তু আইনের প্রশ্ন হচ্ছে, পারিবারিক আদালতে দাম্পত্য অধিকার পুনরুদ্ধার মামলায় অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার আবেদন চলে কি না। মকবুল মাজেদ বনাম সুফিয়া খাতুন মামলায় (৪০ ডিএলআর ৩০৫, এইচসিডি) মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগের সিদ্ধান্ত এরকম যে, ১৯৮৫ সালে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের সহকারী জজ আদালতে একটি মামলা হয়। পারিবারিক আদালতের অধ্যাদেশে করা সর্বপ্রথম মামলাটিতে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি উত্থাপিত হয়। এতে স্বামী তাঁর স্ত্রীর দ্বিতীয় বিয়ের ওপর অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা প্রার্থনা করে। আদালত নিষেধাজ্ঞার আবেদন অগ্রাহ্য করেন। পরে জেলা জজ আদালতে আপিল করা হলে আপিল নামঞ্জুর হয়। পরে হাইকোর্ট বিভাগে রিভিশন করা হয়। হাইকোর্ট বিভাগ তার রায়ে বলেন, ‘পারিবারিক আদালত অধ্যাদেশে ২০ ধারা অনুযায়ী দেওয়ানি কার্যবিধির ধারা প্রয়োগ যোগ্য নয়।

অবশেষে সুমীর স্বামীর দায়ের করা মামলাটির শুনানি হলো। আদালত আদেশ দিলেন, ‘ইদ্দতকাল পর্যন্ত অর্থাৎ ৯০ দিন অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত স্ত্রী অন্যত্র বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হইতে পারিবে না এ মর্মে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা মঞ্জুর।’  সাধারণত আইন অনুযায়ী তালাকের নোটিশ প্রেরণের পর ইদ্দতকাল পর্যন্ত, অর্থাৎ ৯০ দিন অতিবাহিত না হওয়া পর্যন্ত তালাক কার্যকর হয় না। এ সময় অন্যত্র বিয়ে করার ক্ষেত্রে আইনে নিষেধ আছে। আদালত ইদ্দতকাল পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা দিয়ে এ আইনের কার্যকারিতা আরও পাকাপোক্ত করলেন।

এখানে প্রশ্ন উঠতে পারে তাহলে মূল মামলাটির অর্থাৎ দাম্পত্য অধিকার পুনরুদ্ধার মামলাটির কী হবে?’  সহজেই বলা যায়, মূল মামলার জবাব দিতে হবে। মামলায় লড়তে হবে। শুনানিতে সুমী আদালতে উপস্থিত হয়ে বললেন, কাবিননামার ১৮ নম্বর ঘরে তার তালাক প্রদানের ক্ষমতা দেওয়া আছে। তিনি স্বেচ্ছায় এবং স্বজ্ঞানে তার স্বামীকে তালাক দিয়েছেন। আর তিনি তার স্বামীর ঘর করতে চান না। বিজ্ঞ আদালত ওই দিনই মামলাটি খারিজ করে দিলেন। আইনত সুমীর মেয়েটি সাবালিকা হওয়া পর্যন্ত মায়ের হেফাজতেই থাকবে।

১৯৩৯ সালের মুসলিম বিবাহ বিচ্ছেদ আইনে অত্যন্ত— সুষ্পষ্টভাবে বলা হয়েছে কি কি কারণে একজন স্ত্রী আদালতে বিয়ে বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারবে।

কারণগুলো হলোঃ

১. চার বছর পর্যন্ত স্বামী নিরুদ্দেশ থাকলে।
২. দুই বৎসর স্বামী স্ত্রীর খোরপোষ দিতে ব্যর্থ হলে।
৩. স্বামীর সাত বৎসর কিংবা তার চেয়েও বেশী কারাদ- হলে।
৪. স্বামী কোন যুক্তিসংগত কারণ ব্যতিত তিন বছর যাবৎ দাম্পত্য দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে।
৫. বিয়ের সময় পুরষত্বহীন থাকলে এবং তা মামলা দায়ের করা পর্যন্ত বজায় থাকলে।
৬. স্বামী দুই বৎসর ধরে পাগল থাকলে অথবা কুষ্ঠ ব্যাধিতে বা মারাত্মক যৌন ব্যধিতে আক্রান্ত থাকলে।
৭. বিবাহ অস্বীকার করলে। কোন মেয়ের বাবা বা অভিভাবক যদি ১৮ বছর বয়স হওয়ার আগে মেয়ের বিয়ে দেন, তাহলে মেয়েটি ১৯ বছর হওয়ার আগে বিয়ে অস্বীকার করে বিয়ে ভেঙ্গে দিতে পারে, তবে যদি মেয়েটির স্বামীর সঙ্গে দাম্পত্য সর্ম্পক (সহবাস) স্থাপিত না হয়ে থাকে তখনি কোন বিয়ে অস্বীকার করে আদালতে বিচ্ছেদের ডিক্রি চাইতে পারে।
৮. স্বামী ১৯৬১ সনের মুসলিম পারিবারিক আইনের বিধান লংঘন করে একাধিক স্ত্রী গ্রহণ করলে।
৯. স্বামীর নিষ্ঠুরতার কারণে।

উপরে যে কোন এক বা একাধিক কারণে স্ত্রী আদালতে বিয়ে বিচ্ছেদের আবেদন করতে পারে। অভিযোগ প্রমাণের দায়িত্ব স্ত্রীর। প্রমাণিত হলে স্ত্রী বিচ্ছেদের পক্ষে ডিক্রি পেতে পারে, আদালত বিচ্ছেদের ডিক্রি দেবার পর সাত দিনের মধ্যে একটি সত্যায়িত কপি আদালতের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানের কাছে পাঠাবে।

১৯৬১ সনের মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ অনুযায়ী চেয়ারম্যান নোটিশকে তালাক সংক্রান্ত নোটিশ হিসেবে গণ্য করে আইনানুযায়ী পদক্ষেপ নিবে এবং চেয়ারম্যান যেদিন নোটিশ পাবে সে দিন থেকে ঠিক নব্বই দিন পর তালাক চূড়ান্তভাবে কার্যকর হবে।

স্বামীর আদালত স্বীকৃত নিষ্ঠুর ব্যবহার সমূহ

ক) অভ্যাসগতভাবে স্ত্রীকে আঘাত করলে বা নিষ্ঠুর আচরণ করলে, উক্ত আচরণ দৈহিক পীড়নের পর্যায়ে না পড়লেও, তার জীবন শোচনীয় করে তুলেছে এমন হলে।
খ) স্বামী খারাপ মেয়ের সাথে জীবনযাপন করলে।
গ) স্ত্রীকে অনৈতিক জীবনযাপনে বাধ্য করলে।
ঘ) স্ত্রীর সম্পত্তি নষ্ট করলে।
ঙ) স্ত্রীকে ধর্মপালনে বাধা দিলে।
চ) একাধিক স্ত্রী থাকলে সকলের সাথে সমান ব্যবহার না করলে।
ছ) এছাড়া অন্য যে কোন কারণে (যে সকল কারণে মুসলিম আইনে বিয়ের চুক্তি ভঙ্গ করা হয়)।

লেখকঃ সাপ্তাহিক ‘সময়ের দিগন্ত’ পত্রিকার প্রকাশক-সম্পাদক ও আইনজীবী জজ কোর্ট, কুষ্টিয়া।

লিখেছেনঃ অ্যাডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক