সম্পর্কে যত্নশীল আচরণ

জীবনসঙ্গীকে কেবল ভালবাসলেই হয়না ভালো রাখতেও জানতে হয়। আপনি হয়তো আপনার জীবনসঙ্গীকে ভালবাসছেন ঠিকই কিন্তু আপনি তার প্রতি যত্নশীল নন। এতে করে কিন্তু আপনাদের সম্পর্ক হঠাৎ বিরুপ হয়ে যেতে পারে।

সম্পর্কের যত্নশীল আচরণ গুলো কি?

যোগাযোগঃ

আপনি হয়তো খুব ব্যস্ত অথবা সময় করে জেনে নিচ্ছেন আপনার সঙ্গী কি করছে, কেমন আছে, ঠিকঠাক ভাবে আছে কিনা এ বিষয়গুলো হল সঙ্গীর প্রতি যত্নশীল আচরণ। আর আপনি যখন এ বিষয়গুলোর খোঁজ রাখছেন না ব্যস্ততার জন্য বা মনের ভুলে তখন বিষয়টি দাঁড়ায় সম্পর্কের প্রতি অযত্নশীল আচরণ যা আপনার সম্পর্কের মাঝে একসময় দূরত্ব তৈরি করবে।

একান্ত সময় কাটানঃ

দাম্পত্য সম্পর্কে যে বিষয়টি প্রতিদিন করা উচিত তা হল দুজন একান্ত কিছু সময় কাটানো। আপনাদের একান্ত সময়ে আপনারা পরস্পরের ভালো লাগা, অভিমান, অভিযোগ, চাওয়া-পাওয়া বিষয়গুলো বুজতে পারবেন তাই কিছু সময়ের জন্য হলেও একান্ত সময় কাটান।

কাজে সহযোগিতা করাঃ

সাংসারিক বা ব্যক্তিগত যেকোনো ধরনের ছোট-বড় কাজে আপনার সঙ্গীকে সহযোগিতা করুন এতে করে আপনার সঙ্গী আপনার প্রতি ভরসা পাবে। দাম্পত্যে সম্পর্কে কাজে সহযোগিতা বিষয়টি নিয়ে স্বামী-স্ত্রী মধ্যে বেশ হিসাবনিকাশ হয় যার ফলে ঝগড়া হতে থাকে।

মানসিক অবস্থার খোঁজ নিনঃ

মানসিক অবস্থা ব্যক্তির আচরণের উপর প্রভাব ফেলে। যেমন- আপনার সঙ্গী অকারনে রেগে যাচ্ছে, বিষণ্ণ থাকছে, কথা কম বলছে, উদাসীন হয়ে যাচ্ছে এসব আচরণ যদি দেখতে পান তাহলে তার থেকে জেনে নিন কেন সে ভালো নেই। যখন আপনার সঙ্গী তার মনের অবস্থা আপনার কাছে জানাবে হতে পারে কিছু বিষয় আপনার তাকে সঠিক মনে হচ্ছে না তাই বলে ঐ অবস্থায় তাকে এমন কিছু বলবেন না যাতে তার কষ্ট আরও বেড়ে যায়। ঠিক এরকম সময়ে তার কথাগুলো জানুন ও তাকে হালকা হতে দিন। এছাড়া আপনারা দুজনই আপনাদের ব্যাপারে পরস্পরের কাছে সচ্ছ থাকুন।

শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে জানুনঃ

আপনার সঙ্গীর শারীরিক সকল অবস্থা ভালো আছে কিনা সে বিষয় খোঁজ নিন। এ খোঁজ নেয়াটা যেন শুধু জৈবিক চাহিদার জন্য না হয়ে থাকে। শারীরিক সুস্থতা মানুষের মানসিক অবস্থার উপরও প্রভাব ফেল। যদি আপনার সঙ্গী অসুস্থ থাকে তাহলে তার সেবা করুন। মনে রাখবেন ডাক্তার দেখানো আর ওষুধ কেনা কারো প্রতি যত্নশীল আচরণ হতে পারেনা।

সম্মান করুনঃ

সম্পর্কে সম্মান প্রদর্শন বিষয়টি থাকা অতি জরুরী। আপনাদের মাঝে হয়তো পর্যাপ্ত প্রেম-ভালোবাসা রয়েছে আবার আপনি যখন তখন হয়তো যা তা আচরণ পরিবার, বন্ধুবান্ধব বা বাহিরের কারো সামনে সঙ্গীর সাথে করে ফেলছেন এতে করে কিন্তু আপনার প্রতি তার মনোভাব ও সম্মান নষ্ট হতে থাকবে যা আপনাদের সম্পর্কে ধীরে ধীরে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

সঙ্গীর ইচ্ছেকে প্রাধান্য দিনঃ

আপনার সঙ্গীর ছোট-বড় চাওয়া বা আবদারগুলো পূরণ করার চেষ্টা করুন। হতে পারে আপনার সঙ্গী অসময়ে ঘুরতে যেতে চাচ্ছে অথবা কিছু কিনতে চাইছে তার চাওয়া পাওয়া গুলো পূরণ করুন এতে করে আপনার সঙ্গী একসময় আপনার ইচ্ছেগুলোকে তার ইচ্ছের চেয়ে বড় করে দেখবে।

মাঝে মধ্যে সঙ্গীকে চমকে দিনঃ

আপনার সঙ্গীর ভালো লাগা কিছু উপহার দিয়ে মাঝে মধ্যে তাকে চমকে দিন। কখনও কখনও আপনার বা তার ব্যস্ততার মাঝে ফোন করে বলুন ঘুরতে যাবেন এভাবে চমকে দিন। ব্যস্ততা কে ছুটি দিয়ে দুজন ভালো সময় কাটান এতে দুজনার মানসিক অবস্থা সম্পর্কে ভালো থাকবে।

সঙ্গীর পরিবারের প্রতি আন্তরিকতা প্রকাশ করুনঃ

আপনি সঙ্গীকে ভালবাসছেন, ভালো রাখছেন কিন্ত তার পরিবারের সাথে আপনার সম্পর্ক তেমন ভালো নয় বা আপনি ভালো ব্যবহার করছেন না এতে করে আপনার সঙ্গী পরিবারের কাছে ছোট হচ্ছে। সঙ্গীর পরিবারের প্রতি আন্তরিক হন এতে আপনার সঙ্গীর প্রতি অনেকটা যত্নশীল আচরণের বহিঃপ্রকাশ পায়।

কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুনঃ

আপনার সঙ্গী আপনার খুশির জন্য কিছু করলে তাতে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন। যেমন- আপনার জন্য রান্না করা, উপহার দেয়া, আপনার পছন্দমত ঘর সাজানো ইত্যাদি বিষয়ে তার করনীয় কাজে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন।

দাম্পত্য সম্পর্ক মানে কেবল প্রেম-ভালবাসা, জৈবিক চাহিদা বা অর্থ-সম্পদ নয়। একটি সম্পর্কে যত্নশীল আচরণ থাকা প্রয়োজন।