নারীর মন, নারীর যত চাওয়া

আকাশের রং আর নারীর মন নাকি ক্ষণে ক্ষণে পাল্টায়! এ কথা হয়তো পুরুষেরাই প্রচার করেছেন। কিন্তু এমন ধারণার নেপথ্যে রয়েছে একজন পুরুষের কাছে নারী কখন কী চান, তার উত্তর খুঁজে না পাওয়ার রহস্য। উত্তর মিলুক বা না মিলুক চিরদিনই পছন্দের নারীর মন পেতে পুরুষেরা মরিয়া হয়ে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে চলেছেন। তবে আশার কথা হলো দুনিয়াজুড়েই পুরুষের কাছে নারীর চাওয়া এবং পছন্দ-অপছন্দের মধ্যে কিছু সাধারণ মিল আছে।

মনস্তত্ত্ব বিশেষজ্ঞদের বরাত দিয়ে সম্প্রতি টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে পুরুষের কাছে নারীর কয়েকটি সাধারণ চাওয়ার তালিকা তুলে ধরা হয়েছে।

সুপারম্যান: নারীর স্বপ্নের পুরুষ: সব সময়ই তাঁর নিরাপত্তা চান নারী। নারীর চাওয়া, তাঁর পুরুষ-সঙ্গীটি সুপারম্যানের মতো তাঁকে আগলে রাখুক, তাঁর সার্বিক নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করুক। তাই পুরুষের উচিত, তাঁর নারী-সঙ্গীর সব বিপদ-আপদে আন্তরিকতার সঙ্গে এগিয়ে আসা, পাশে থাকা। নারী-সঙ্গীকে এই নিশ্চয়তা দেওয়া যে, সে থাকতে নিরাপত্তা নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই।

সুঘ্রাণেও নিজস্বতা: বিজ্ঞাপনে দেখা যায়, কোনো বিশেষ ব্র্যান্ডের সুগন্ধি ব্যবহারের পর পুরুষের কাছে ছুটে আসে কত নারী! বিজ্ঞাপনগুলো বেশ নাটকীয় হলেও এ ধারণার বাস্তব ভিত্তি রয়েছে। এমন সুগন্ধি বা ঘাম-প্রতিরোধক ব্যবহার করুন, যা আপনার সঙ্গে যায়। বিশেষ করে নারী-সঙ্গীর সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের দিন কোনোভাবেই সুগন্ধি ব্যবহার করা নিয়ে পরীক্ষা চালানো ঠিক হবে না। বন্ধুর দারুণ সুগন্ধিটি আপনার সঙ্গে মানানসই নাও হতে পারে। তাই এ ক্ষেত্রে সচেতন ও সতর্ক হন।


চমক আর চমক: 
চমক পেতে পছন্দ করেন নারীরা। এ চমক হতে পারে বই, তাকে নিয়ে লেখা কবিতা, হাতে লেখা প্রেমপত্র, একগুচ্ছ ফুল, চকলেট কিংবা কোনো আকর্ষণীয় উপহার। চমকের ক্ষেত্রে সংখ্যা বা দামি উপহার দেওয়াটাই গুরুত্বপূর্ণ নয়; বরং সঙ্গীর মন বুঝে তাকে বিস্মিত করতে পারাটাই আসল কাজ।


সততাই সর্বোত্তম: 
কথায় বলে, সততাই সর্বোত্তম পন্থা। সম্পর্কের সব পর্যায়েই এ কথা সমানভাবে প্রযোজ্য। বাস্তবতা যতই তিক্ত হোক না কেন, সবকিছুতেই পুরুষের কাছ থেকে নারী-সঙ্গী সততা আশা করেন। দীর্ঘমেয়াদি সম্পর্কে ভয়াবহ পরিণতি ডেকে আনতে পারে মিথ্যা ও অসততা। তাই এ দুটি বাজে অভ্যাস পুরোপুরি পরিহার করুন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সত্য কথায় বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। কিন্তু এর মধ্য দিয়ে আপনি সঙ্গীর বিশ্বস্ততা অর্জন করতে পারবেন।


শারীরিক কাঠামো: 
যে যা-ই বলুক না কেন; স্বাস্থ্যবান, সবল, সুঠাম-দেহী ও লম্বা পুরুষের প্রতি অনেক নারীরই দুর্বলতা থাকে। নারী চান, তাঁর প্রিয় মানুষটি সুস্বাস্থ্যের অধিকারী ও সুদর্শন হোক। এটা নিয়ে তিনি গর্ববোধ করেন। তাই শরীরের যত্ন নিন। পুরুষেরা নিজেকে সুস্থ ও সবল রাখুন।


পোশাক-পরিচ্ছদ: 
ব্যক্তিত্ব ও রুচির বহিঃপ্রকাশ ঘটায় পোশাক-পরিচ্ছদ। মার্জিত, জুতসই ও রুচিশীল পোশাক-পরিচ্ছদে অভ্যস্ত পুরুষকে নারীরা গুরুত্ব দেন। নারীরা চান, তাঁর পুরুষ-সঙ্গীটি সব সময় পরিপাটি থাকুক। এ কারণে প্রিয়ার মন জয়ে সব সময় রুচিশীল পোশাক পরুন। মানানসই ফ্যাশন অনুসরণ করুন।


চুল: 
আধুনিক পোশাক পরেও চুলের সেকেলে স্টাইলের জন্য একজন পুরুষ পিছিয়ে যেতে পারেন। চুলের স্টাইলও রুচি ও ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তোলে। চেহারা, শারীরিক গঠন ও পোশাকের সঙ্গে চুলের মানানসই স্টাইল পুরুষকে নজরকাড়া করে তুলতে পারে। নারীকে মুগ্ধ করে টানতে পারে কাছে। সঙ্গীর খাপছাড়া স্টাইলের চুল নারীর একদমই অপছন্দ। নারী তাঁর পুরুষ-সঙ্গীর চুলের স্টাইলে পুরুষত্বের বহিঃপ্রকাশ খুঁজে পান।

রান্নার জাদু: নারী-সঙ্গীকে কোনো দামি রেস্তোরাঁয় নিয়ে যেতে পারেন, পারেন দামি সব খাবার খাওয়াতে। কিন্তু কোনো পুরুষ যদি নিজ হাতে পছন্দের কোনো খাবার রান্না করে উপস্থাপন করেন, তা নারী-সঙ্গীকে এতটাই মুগ্ধ করবে যে ওই মুহূর্তের কথা কখনোই ভুলবেন না তিনি। সুত্রঃ প্রথম আলো