দাম্পত্য জীবনে সুখ-শান্তি

দাম্পত্য জীবনে আনন্দের জন্য নিজেদের কিছু কিছু ভাললাগার বিষয় তৈরি করে নিতে হয়।  ব্যবসায়-কাজের ফাঁকে আমার স্ত্রীর পছন্দের কোন একটি জায়গায় বেড়াতে যাওয়া বা আমার পছন্দের কোন রেস্টুরেন্টে খেতে যাওয়া পারস্পরিক বোঝাপড়ায় অনেক বেশি সহায়ক হয়।

একসঙ্গে চমৎকার কোন রোমান্টিক সিনেমা দেখতে যাওয়ার মাধ্যমে উৎযাপন করতে পারেন ছোট ছোট আনন্দের মুহূর্ত। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক গড়ে ওঠে পারস্পরিক ভালবাসার মধ্য দিয়ে।   আর স্বামী স্ত্রীর ভালোবাসাটার ভিত্তিটা কয়েক দিন বা কয়েক মাসে গড়ে উঠেনা।  দাম্পত্য সম্পর্কটা হলো চারা গাছের মত যাকে বড় করতে হয় পরম যত্নে, এবং পরিপূর্ন হয় ধীরে ধীরে।  একে অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা, সম্মান, সহনশীলতার মাধ্যমেই ভালবাসার এই চর্চা করা সম্ভব।  সংসারে স্বামী ছাড়াও থাকতে পারে শ্বশুর-শাশুড়ি, দেবর-ননদ। এক সঙ্গে থাকলে পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমেই সুন্দর পারিবারিক সম্পর্ক বজায় রাখা সম্ভব।   সংসারে সুখের জন্য কোন কাজই কেবল ছেলেদের জন্য নয়, আবার কোনটাই কেবল মেয়েদের জন্য নয়; পরিবারের নারী-পুরুষের সমন্বিত কাজেই সংসারে সুখ-শান্তি বজায় থাকে। স্বামী-স্ত্রী দুজন যেহেতু ভিন্ন দুটি পরিবার থেকে এসে একসঙ্গে বসবাস করছে; তাই দু’জনের মধ্যে কিছু অমিল থাকতেই পারে।  কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে হয়ত দুজন কিছুতেই একমত হতে পারছে না।  সে ক্ষেত্রে যার যার মত প্রকাশের ক্ষেত্রে যেমন স্বাধীনতা থাকবে তেমনি স্বামী বা স্ত্রীর মতামতের প্রতি আপনাকে হতে হবে শ্রদ্ধাশীল।

দাম্পত্যে যা যা করবেন:

১।  একজন আরেকজনকে প্রতিদিন অন্তত একবার করে বলুন আমি তোমাকে ভালবাসি! বিয়ের পর কখনই এই কথা বলেননি ভাবছেন তো কি হয়েছে! সাহস করে মন খুলে স্ত্রীকে বা স্বামীকে বলুন না প্লিজ। দেখবেন আপনার দাম্পত্য জীবনে আনন্দ কি পরিমাণ বেড়ে গেছে।
২।  ছোটখাটো ভুলেও ক্ষমা চেয়ে নিন।আবার ছোটখাটো ভুলকে ক্ষমা করতেও দিধা করবেন না। তাতে কেউ কারও কাছে ছোট হয়ে যাবেন না। বরং পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধের জন্ম নেবে এবং একে অন্যকে ছাড় দেয়ার মানসিকতা তৈরি হবে।
৩।  একে অন্যকে ধন্যবাদ দিন। প্রতিদিনই ছোট-বড় অনেক কাজে দম্পতিরা একে অন্যের সাহায্য নিয়ে থাকেন। এ ধরনের ক্ষেত্রে প্রতিবারই স্ত্রীকে ধন্যবাদ বা কৃতজ্ঞতা জানান।
৪।  প্রশংসা করুন। আপনার স্বামী বা স্ত্রী নিশ্চয়ই কিছু না কিছু গুণে গুণান্বিত। তার গুণগুলো খুঁজে বের করুন। সময় পেলেই তার গুণের প্রশংসা করুন।
৫।  চমকে দিন প্রিয় মানুষটিকে পছন্দের একটি জিনিস উপহার দিয়ে। চেষ্টা করুন সঙ্গীকে বিভিন্ন কারণে বিভিন্নভাবে চমকে দিয়ে আনন্দের উৎস বাড়াতে। কিছুই করার না থাকলে বেড়িয়ে আসুন নদীর ধারে কিংবা লেকের পারে।
৬।  সন্তানের ভাল-মন্দ যে কোন বিষয়ে দুজনের দায়িত্ব স্বীকার করে নিন। একে অন্যের ওপর দায়িত্ব চাপিয়ে দেবেন না।

দাম্পত্যে বিরত থাকুন:

১।  সঙ্গীকে অন্য কারও সঙ্গে তুলনা করা থেকে সচেতনভাবে বিরত থাকুন। সবার সামনে আপনার স্বামী বা স্ত্রীর সমালোচনা করবেন না। প্রয়োজনে একান্তে বলুন।
২।  একে অপরের কাছে বেশি কিছু আশা না করাই ভাল।  সঙ্গীর সীমাবদ্ধতাকে সহজে মেনে নিন।
৩।  বন্ধুদের সঙ্গে বেশি সময় কাটাতে গিয়ে স্ত্রী বা স্বামীকে বঞ্চিত করবেন না।
৪।  আপনার সঙ্গী পছন্দ করেন না এমন কাজ তাকে দিয়ে করাতে যাবেন না।  এতে দাম্পত্য জীবনে তিক্ততার সৃষ্টি হয়।
৫।  দাম্পত্য জীবনে ঝামেলা হতে পারে এমন বিষয় এড়িয়ে চলুন।