কর্মজীবি নারী ও ডিভোর্স

মিতা আর আসিফ।  প্রতিষ্ঠিত, সফল।  ১০ বছরের বিবাহিত জীবনে আসে নি সন্তান। গত দুই বছরে বদলে গেছে তাদের সম্পর্কের সমীকরণ। হারিয়ে গেছে প্রেম। দাম্পত্য কেবল হয়ে গেছে রোজকার রুটিনমাফিক নাশতা বানানো কিংবা অফিসে যাবার মতো একঘেয়ে। সেক্সুয়াল আর্জ কিংবা এক্সাইটমেন্টও নেই আগের মতো। সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেললো মিতা। এভাবে নয়। নতুন করে জীবন শুরু করবে সে, আসিফকে ছাড়াই।

আরেকটি গল্প।  আবির ও সুমী দুজনেই ব্যবসায়ী। বন্ধুত্ব থেকে প্রেম। তারপর বিয়ে।বিয়ের দুই বছরের মধ্যে সুমী গর্ভধারণ করলো। ধীরে ধীরে সুমী বুঝতে পারলো তার কাছ থেকে অনেক দূরে সরে যাচ্ছে আবির।  আবিরের অভিযোগ সুমীর মেজাজ নিয়ে। অসম্ভব জেদি, একরোখা মেয়ে। তার চাহিদা পূরণ করা অসম্ভব। প্রথমে ভালোবাসার তোড়ে এসব অভিযোগ গুরুত্ব পায় নি। কিন্তু আবির ধীরে ধীরে সুমীকে দূরে সরিয়ে দিতে শুরু করলো। সুমীর শারীরিক কিছু সমস্যাও ছিলো যা তাকে কখনো কখনো দুর্বল করে দিতো। ধীরে ধীরে সুমী আরো অসুস্থ হয়ে পড়লো যার তার গর্ভের সন্তানের বৃদ্ধিকে ব্যাহত করে। মাত্র সাত মাস বয়সে সন্তানটি মৃত্যুবরণ করে। মানসিক যন্ত্রণায় সুমী ভীষণ অসুস্থ হয়ে পড়লো। তার কিছুদিন পরেই ডিভোর্স লেটার পাঠায় আবির।

এধরণের ঘটনা এখন অহরহ দেখা যায় আমাদের সমাজে। বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে পুরো চিত্রটি আরো ব্যাপক। এই লেখাটি কর্মজীবি মহিলাদের ডিভোর্স সংক্রান্ত।

বাংলাদেশে ডিভোর্সকে এখনো ভীষণ নেতিবাচকভাবে দেখা হয়। তাই বলে ডিভোর্স থেমে নেই। কর্মজীবি মহিলাদের ডিভোর্সের পেছনের কারণগুলো পর্যালোচনা করলেই কিছু বিষয়কে মূল কারণ হিসেবে চিহ্নিত করা যায়।

বর্তমানে মেয়েদের শিক্ষার প্রতি আগ্রহ বেড়েছে। আত্মোন্নয়নের ব্যাপারে তারা অত্যন্ত সচেতন। একজন কর্মজীবি নারী তার কর্মস্থলে একজন পুরুষের সমান লয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। আর তাই যখন সে দেখতে পাচ্ছে, পরিবারে তার স্বামী তাকে মূল্যহীন বলে মনে করছে, তখনই শুরু হচ্ছে দ্বন্দ্ব।

অর্থনৈতিক স্বাধীনতা আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।একজন উপার্জনক্ষম নারী ব্যক্তিস্বাধীনতা সম্পর্কে সচেতন হয়। তার নিজস্ব মর্যাদাবোধ ও বিশ্বাস গড়ে উঠে। এই বিশ্বাসে আঘাত একজন মানুষ হিসেবে তার জন্য মেনে নেয়া কঠিন।

সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কারণ আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। এখনো আমাদের সমাজে ডিভোর্সকে ইতিবাচকভাবে দেখা হয় না। তাই নারীরা অনেকসময় নিজের চাওয়া পাওয়াকে উপেক্ষা করে সংসার টিকিয়ে রাখতে চায়। শারীরিক মানসিক নির্যাতন সহ্য করে জীবন অতিবাহিত করে।

ডিভোর্সকে যদি আরো গভীরভাবে পর্যালোচনা করতে চাই, হয়তোবা আরো অনেক কারণ বেরিয়ে আসবে। এখন প্রশ্ন হলো, ডিভোর্স কি দোষের কিছু? বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়া মানেই ধরে নেয়া হয়, এই মানুষটির সাথে সারাজীবন অতিবাহিত করতে হবে। কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই দুটি ভিন্ন পরিবেশ থেকে আসা দুটি মানুষের মূল্যবোধ, বিশ্বাস সবকিছুই দুইরকম। সাধারণত দেখা যায়, যেসব বিয়ে হাই কনফ্লিক্ট ম্যারেজ, তাদের মধ্যে ডিভোর্সের হার সবচেয়ে বেশি। আসুন এবার একটু গভীরে চিন্তা করি। একটু অভাব হলেই আমরা ভাবি, এই সম্পর্ক আমাকে কী দিচ্ছে? আমার কাছে সমাজ, সংস্কৃতি গুরুত্বপূর্ণ না আমি? যদি সমাজ গুরুত্বপূর্ণ হয়, তবে নিজেকে প্রশ্ন করি, এই সমাজ আমাকে এই সম্পর্কের ক্ষেত্রে কী কী ইতিবাচক প্রভাব ফেলছে। আবার একইভাবে কী কী নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। ডিভোর্স ঠিক না বা ডিভোর্স খারাপ , এই বার্তাগুলো আমার বার্তা না আমার সমাজ বা অভিভাবকের বার্তা?

সকল প্রশ্নের একই উত্তর আসে আমার কাছে। একমাত্র আমিই পারি আমার জীবনকে গড়ে তুলতে। সেক্ষেত্রে সম্পর্ক একটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। যখন দুটি মানুষ বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়, তখন স্বাভাবিকভাবেই তাদের এধরণের কোন চিন্তা থাকে না যে, এই বিয়ের সম্পর্ক কখনো ডিভোর্সে গড়াতে পারে। কিন্তু যখন দুজনের মধ্যে মতোবিরোধ তুঙ্গে ওঠে, একসাথে থাকা দুঃসহ হয়ে যায়, তখন হয়তো এ দম্পতি ডিভোর্সের চিন্তা করে।

একজন নারীর পক্ষে এ ধরণের সিদ্ধান্ত নেয়াটা আমাদের সমাজে ভীষণ যন্ত্রণাদায়ক। আবার যদি সন্তান থাকে তবে সমস্যার গভীরতা আরো বেশি। নারীরা অনেক সময় নিজেকে দোষী বলে মনে করে। সমাজের বিদ্রুপ কর্মজীবি নারীদের ক্ষেত্রে বেশি হয়। নিজের উপর ভরসা রাখুন। কর্মজীবন আপনাকে সিদ্ধান্ত নেয়া শিখিয়েছে। নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নিন। নিজেকে দোষী ভাবার কোন কারণ নেই।

ডিভোর্স একটি মানসিক আঘাত

দাম্পত্য সম্পর্কের উপর একটি বড়ো আঘাত এটা বহন করা খুব কঠিন। এ সময় একজন রাগ, ক্ষোভ , একা থাকার অনিশ্চয়তা, ভয়, অপরাধবোধে ভোগে। অন্যকে বিশ্বাসঘাতক মনে করার প্রবণতা, নিরাপত্তাহীনতা, অস্থিরতা, ভবিষ্যতের দুশ্চিন্তা, নিজের উপর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলাও খুব স্বাভাবিক।

অনেকক্ষেত্রে এর বিপরীত অর্থাৎ মানসিক যন্ত্রণা থেকে মুক্তির এক দৃষ্টান্ত হিসেবে ডিভোর্সকে দেখা হয়।

বিবাহবিচ্ছেদের পর জীবন হতে পারে ভীষণ কষ্টসাধ্য। প্রত্যেকটি মেয়ের নিজের জীবন বিশেষ করে বিবাহিত জীবন নিয়ে একটি পরিকল্পনা থাকে। এই পরিকল্পনায় একজন কর্মজীবি নারী কী কী বিষয় অন্তর্ভূক্ত করতে পারেন সেটা যদি দেখি তবে প্রথমেই বলা যায়, ঘটনাটিকে মেনে নেয়া। মেনে নেওয়া যে, আমি এখন কারও স্ত্রী নই। বাস্তবতা এড়িয়ে যাওয়া কিংবা শোক পালনের মাধ্যমে দীর্ঘস্থায়ী করার অর্থ ভবিষ্যৎ সম্পর্কে অনিশ্চয়তা। প্রয়োজন নতুন জীবন মেনে নেয়া। নতুন আশা জাগ্রত করা।  ডিভোর্স কেবল বিচ্ছেদ নয়, এটা নতুন জীবনের আভাসও।

কর্মজীবি নারীর করণীয়

এক অবস্থান থেকে অন্য অবস্থানে গমনের যে মানসিক চাপ তা থেকে নিজেকে একটু সরিয়ে আনার জন্য একজন কর্মজীবি নারী যা করতে পারেন:

  • প্রথমত, নিজের আবেগগুলোকে প্রাধান্য দেয়া। আবেগের সাথে থাকা। নিজের কষ্টগুলো অনুভব করা। কী হচ্ছে তাতে মনোযোগ দেয়া। নিজের সাথে নিজে কথা বলা।
  • নিজের শরীরের যত্ন নেয়া। শারীরিক ব্যায়াম বা কাজে ব্যস্ত থাকলে অস্থিরতা, দুশ্চিন্তা, রাগসহ সকল নেতিবাচক অনুভূতি থেকে দূরে থাকা যায়।
  • নিজের পছন্দ অনুযায়ী সময় কাটানো। গল্পের বই পড়া, বিশ্রাম নেয়া, ঘুরতে যাওয়া, বন্ধুর সাথে সময় কাটানো। সর্বোপরি ইতিবাচক মনোভাবাপন্ন মানুষের সাথে সময় কাটানো।
  • অফিসে বা বাসায় যে সমস্যাগুলো আয়ত্বের বাইরে, তা নিয়ে অতিরিক্ত ভাবার কিছু নেই। খুব গভীরে ঢুকে নিজের কষ্ট বাড়ানোর প্রয়োজন নেই।
  • খুব দ্রুত বা তাড়াহুড়ো করে কোন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া থেকে বিরত থাকা। পরিবেশ-পরিস্থিতি বিবেচনা করে সময় নিয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করুন। একজন কর্মজীবি নারীর সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা স্বাভাবিকভাবেই অত্যন্ত শক্তিশালী।
  • সর্বোপরি একজন কাউন্সেলরের সাথে দেখা করার বিষয়টি মাথায় রাখা যেতে পারে। একজন কাউন্সেলর ব্যক্তির ইতিবাচক দিকগুলো তুলে ধরে আত্মনির্ভলশীল করে গড়ে তুলতে সাহায্য করতে পারেন।

সবশেষে বলতে চাই, ডিভোর্স অর্থ পরিবর্তন। ডিভোর্স একটি জীবনে কোনো না কোনোভাবে পরিবর্তন আনে। বিশ্বাস রাখুন নিজের উপর। আপনিই পারবেন, জীবনের সকল কষ্টকে শক্তিতে রূপান্তর করতে। একজন কর্মজীবি নারী হিসেবে বলতে পারি, কর্ম আমাদের আত্মনির্ভরশীল ও আত্মসচেতন করে তোলে। কর্মজীবি নারীদের সহযোগীতা লাভের নেটওয়ার্ক অন্য নারীদের তুলনায় শক্তিশালী। কাজেই এই নেটওয়ার্ক থেকে ইতিবাচক মনোভাবাপন্ন মানুষগুলো হতে পারে আপনার শক্তির উৎস। অথবা আপনার কাজই হতে পারে আপনার শক্তির উৎস।কাজেই ডিভোর্স কখনো একজন কর্মজীবি নারীকে থামিয়ে রাখতে পারে না। সে এগিয়ে যাবেই। সমাজ বিবাহবিচ্ছেদকে নেতিবাচক চোখে দেখলেও আপনিই পারে জীবনকে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে নতুনভাবে সাজাতে। একজন নারী হিসেবে আপনার দক্ষতাকে আরও তীক্ষ্ণ করতে।

লিখেছেন: সুমাইয়া আনোয়ার
ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ , সাইকো সোশ্যাল কাউন্সেলর এবং লেকচারার হিসেবে কর্মরত